fbpx

|

নড়াইলে অবৈধ লোকালয় ইটভাটা গিলে খাছে ফসলি জমি!

প্রকাশিতঃ ৫:২৫ পূর্বাহ্ন | জানুয়ারী ২০, ২০১৮

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■

নড়াইলে বিভিন্ন অঞ্চলের থেকে অবাধে বিক্রি হচ্ছে কৃষি জমির টপ সয়েল বা জমির উপরের উর্বর মাটি। ফলে প্রতি বছর বিপুল পরিমান জমি উর্বরা শক্তি হারিয়ে অনাবাদি হয়ে পড়ছে। অনেক জমি পরিনত হচ্ছে খানা-খন্দে। ইট ভাটায় ইট তৈরি, গর্ত, ডোবা, পুকুর ও নিচু জমি ভরাট করতে এসব মাটি ব্যবহার হচ্ছে।

বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ ভাবে লোকালয়, ফলজ বাগান সহ ফসলি জমিতে গড়ে ওঠা ১৮-২২ টি ইটভাটায় ইট তৈরির সিংহভাগ মাটিই আসে ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি বা টপ সয়েল থেকে। প্রতি বছর কার্তিক মাস থেকে শুরু করে জৈষ্ঠ মাস পর্যন্ত ৭-৮ মাস যাবৎ জেলার বিভিন্ন অঞ্চলের মাঠের কৃষি জমি থেকে প্রতিদিন শত শত গাড়ি মাটি কেটে নেওয়া হয়।

কৃষকের দারিদ্রতা, অজ্ঞতা ও অসচেতনতাকে পুঁজি করে জমি মালিকদের নানারকম প্রলোভন দেখিয়ে এক শ্রেনির দালাল চক্র এসব জমির মাটি কেটে নিতে সহায়তা করছে। জানা গেছে, এলাকার অনেক ট্রাক্টর মালিক নিজেরা এবং দালালদের মাধ্যমে এসব কৃষি জমির মাটি কিনে ট্রাক্টরযোগে বিভিন্ন ইট ভাটায় বিক্রি করছে। প্রতিদিন এ অঞ্চলের মাঠ থেকে শত শত ট্রাক্টর, ট্রাক ও পাওয়ার ট্রেলারে মাটি বোঝাই করে কেটে নিচ্ছে।

বেলটে গ্রামের মাটির ঠিকাদার রকিব হোসেন বলেন, এক্ষেত্রে জমির মালিক প্রতি গাড়ি মাটির মূল্য বাবদ পাচ্ছে একশ’ থেকে দেড়শ’ টাকা। মধ্যসত্বভোগী পায় ৪০ থেকে ৬০ টাকা। ট্রাক্টর মালিকরা মাটি কাটার স্থান থেকে ৫-৭ কি:মি: দুরত্বের মধ্যে প্রতি ট্রলি মাটি বিক্রয় করছে ৮শ থেকে ৯শ টাকায়। নিজের অজান্তেই না বুঝে কোন কোন জমির মালিক জমি সমান করার নামে নগদ টাকার লোভে আবাদি জমি থেকে ৩-৪ ফুট পর্যন্ত গভীর করে মাটি কেটে বিক্রি করে কৃষি জমির সর্বনাশ করছে।

উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা সমরেন বিশ্বাস বলেন, “কৃষি জমির উপরিভাগের স্থর থেকে ৮-৯ ইঞ্চি গভীরতার মাটিতেই নানা প্রকার পুষ্টি ও জৈব উপাদান থাকে যা গাছ খাদ্য হিসাবে গাছ গ্রহণ করে। যদি এভাবে কৃষি জমি থেকে উপরিভাগের মাটি কেটে নেয়া হয় তাহলে জমি উর্বরতা হারাবে এবং ফসল উৎপাদন কমে যাবে”। আর এই স্তরে বাস করে কৃষকের বন্ধু বলে পরিচিত কেঁচো। এই কেঁচোরা তাদের খাদ্য গ্রহণের জন্য নিচের মাটি ক্রমাগত উপরে তোলার ফলে কৃষি জমির উর্বরাশক্তি বৃদ্ধি পায়।

মাটি কাটার ফলে এই কেচোঁ ও নানারকম উপকারী কীটপতঙ্গ মাটির সাথে উঠে পড়ে। সচেতন মহল মনে করেন কৃষি দপ্তরের যথাযথ প্রচার প্রচারণা থাকলে কৃষকরা তাদের কৃষি জমির উর্বর মাটি বিক্রি করত না। অতি দ্রুত যথাযথ কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে যদি ব্যবস্থা গ্রহণ না করেন তাহলে ক্ষুধা ও দারিদ্র মুক্ত বাংলাদেশ গড়া সম্ভব হবে না।

দেখা হয়েছে: 410
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!