fbpx

|

বর্ধিতসভা না গীবদচর্চা !

প্রকাশিতঃ ৮:৫২ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ২৪, ২০১৮

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ
রাজশাহীর তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিতসভা নিয়ে নেতাকর্মী ও জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, বর্ধিতসভা নিয়ে কেউ কেউ প্রশ্ন তুলেছে এটা বর্ধিতসভা না গীবতচর্চা আবার কেউ বলছে তানোরে বর্ধিতসভায় আয়োজন করলে নেতাকর্মীরা তেমন উপস্থিত হবে কি ? না ? সেই শঙ্কা থেকেই উপজেলা সদরে আয়োজন না করে রাজশাহী জেলা সদরে আয়োজন করা হয় এমন বর্ধিতসভা।

সূত্র জানায়, তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌর মেয়র গোলাম রাব্বানিকে ছাড়াই উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিতসভা আয়োজন ও সভায় গোলাম রাব্বানির পদত্যাগ দাবি করে তীব্র ভাষায় তার সমালোচনা করে বক্তব্য রাখায় নেতাকর্মী ও জনমনে এমন মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সূত্রপাত। কেউ বলছে যদি গোলাম রাব্বানিকে বহিস্কার করলেই আওয়ামী লীগের সব সমস্যার অবসান হয়ে তাহলে এতোকিছুর আয়োজন না করে তাকে বহিস্কার করা হলেই তো সব চুকে যায়।

জানা গেছে, চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারী মঙ্গলবার রাজশাহী শহরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিতসভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সাদেকুননবী বাবু চৌধূরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদ ওমর ফারুক চৌধূরী।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল-মামুন, তানোর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমরুল হক ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ প্রদীপ সরকার প্রমূখ।

এছাড়াও বিভিন্ন কমিটির সাংগঠিক নেতার উপস্থিত ছিলেন। এদিকে অধিকাংশ বক্তা বর্ধিতসভায় কিভাবে আওয়ামী লীগের দলীয়কোন্দল নিরসন, সাংগঠনিক কর্মকান্ড জোরদার, সংসদ নির্বাচনে কিভাবে সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ করে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করা যায় বা আগামি দিনের তাদের পরিকল্পনা এসব বিষয়ে দিকনির্দেশনামূলক তেমন কোনো বক্তব্য না রেখে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিতে বহিস্কার ও তার বিরুদ্ধে তীব্র ভাষায় বিষাদাগার করায় নেতাকর্মী ও সাধারণের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

অভিজ্ঞ মহলের অভিমত, যদি জেলা সভাপতি বা সাংসদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলে বা বক্তব্য দিলে সেটা যদি প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরোধীতা করা হয়। তাহলে বর্ধিতসভায় জেলা সভাপতি ও সাংসদের উপস্থিতিতে যারা উপজেলা সভাপতি গোলম রাব্বানির বহিস্কার দাবি করে তার বিরুদ্ধে তীব্র ভাষায় সমালোচনা করে বক্তব্য দিয়েছেন তাদের বক্তব্য কি ? প্রত্যক্ষ বা প্ররাক্ষ ভাবে জেলা সভাপতি, সাংসদ ও আওয়ামী লীগের বিরোধীতা করা নয় ?। এখন জনমেন প্রশ্ন উঠেছে, আসলে এরা কি ? আওয়ামী লীগের ভালো চাই ? যদি ভালো চাই, তাহলে তো তাদের বক্তব্যে দাবি করা উচিৎ ছিলো কিভাবে দলের দলীয়কোন্দল নিরসন করা যায়, কিভাবে সাংগঠনিক কর্মকান্ড জোরদার করা যায়, কিভাবে আগামি সংসদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করা যায় ইত্যাদি বিষয়ে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য উঠে আশা। কিন্তু তারা এসব বিষয়ে বিস্তর আলোচনা না করে উপজেলা সভাপতির বহিস্কার দাবি করেছেন এর হেতু কি?।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পৌর আওয়ামী লীগের এক জৈষ্ঠ নেতা বলেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের (সাবেক) সভাপতি তাজুল ইসলাম ফারুকের কিছু অনুগতরা তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগে ঘাপটি মেরে রয়েছে। মূলত এরাই আওয়ামী লীগের দলীয়কোন্দল কিভাবে জিইয়ে রাখা যায় সেটার জন্য কাজ করছে। এরা কখনই চাইনা দলের কোন্দল নিরসণ হোক এরা মূলত কোন্দল জিইয়ে রেখেছেন বলেও প্রচার রয়েছে।

স্থানীয়দের অভিমত, তানোরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এখানো গোলাম রাব্বানির পিতা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী মাহাম পরিবারের একচ্ছত্র অধিপত্য বিরাজমান রয়েছে। তানোরের রাজনৈতিক অঙ্গনে এখানো প্রায় ২০ হাজার ভোট রয়েছে মাহাম পরিবারের অনুগত। যারা দলমত নির্বিশেষে এসব ভোটারগণ এখানো মাহাম পরিবারকে তাদেরই পরিবার ও মাহাম পুত্র গোলাম রাব্বানিকে তাদেরই নেতা হিসেবে বিবেচনা করে আসছে। এখানো তারা মাহাম পরিবারের দিকনির্দেশনায় ভোট প্রয়োগ করে থাকেন।

তাহলে গোলাম রাব্বানিকে দলের বাইরে রেখে ভোট করলে এসব ভোট কি ? আওয়ামী লীগের ঘরে যাবে ? যদি না ? যাই তাহলে কেনো মিছে রাব্বানিকে দুরে সরিয়ে রাখা ? আর যারা রাব্বানির বহিস্কার দাবি করছে তৃণমূলে তাদের কি অবস্থা ? সেটা কি ? তারা কখনো ভেবেছেন না কি ?। তানোর উপজেলা ও রাজশাহী জেলা সভাপতির মধ্যে কোন্দল বিরাজমান রেখে তারা কোনো অদৃশ্য শক্তির নীল নক্সা বাস্তবায়নে লিপ্ত থাকতে পারেন বলে এমন গুঞ্জন বইছে উপজেলা জুড়ে।

এব্যাপারে একাধিকবার যোগাযোগের চেস্টা করা হলেও আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল কারো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

দেখা হয়েছে: 405
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!