fbpx

|

মমেকের সেই নবজাতক ঠাই পেল মায়ের কুলে

প্রকাশিতঃ ৯:৩৭ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১১, ২০১৮

মোঃ কামাল, ময়মনসিংহঃ

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ( মমেক ) হাসাপতালের শিশু বিভাগ থেকে নবজাতক চুরির ঘটনাটি মিথ্যা ও ভুল তথ্যের বৃত্তিতে ছেলের বদলে মেয়ে সন্তান দেওয়ার কথাটিও ভুল প্রমানিত হয়েছে। সেই কন্যা নবজাতক সন্তানটি এখন তার মায়ের কুলে ঠাই পেয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ জানুয়ারি ) দুপুরে ডি.এন.এ পরীক্ষার মাধ্যমে প্রমান হওয়ার পর ওই নবজাতককে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের ( মমেক ) অধ্যক্ষ মোঃ আনোয়ার হোসেন ও হাসপাতালের উপ-পরিচালক লক্ষী নরায়ন দাস।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে কন্যা সন্তানটি তার মায়ের কুলে ফিরিয়ে দেবার পর হাসপাতালের শিশু বিভাগের কর্তব্যরত ডাক্তার, নার্স ও ওয়ার্ডবয়দের মাঝে আনন্দ উল্লাস জেগে উঠে। পরে ফুল দিয়ে বরন করে ওই নবজাতক ও তার মা পাপিয়াকে বিদায় জানান হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এদিকে মা পাপিয়া আক্তার জানান, আমার ছেলে হয়েছে এমন তথ্যটি গাইনী ওয়ার্ডেই ভুল লেখে ছিল। সেখান থেকেই আমার পরিবারের মাঝে ভুল বুজাবুজি সৃস্ট হয়। পরে ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে আমার মেয়ে সন্তান প্রমান হয়েছে। মেয়েকে কাছে পেয়ে এখন খুব ভাল লাগছে। তবে এমন ভুলতথ্য যাতে কারও বলেই না হয় সে দিকেও লক্ষ রাখতে হাসপাতালের প্রশাসনকে অনুরোধ করেন পাপিয়া।

অন্যদিকে পাপিয়ার স্বামী মনু মিয়া বলেন, আমার সন্তান হওয়ার পরে নাভি কাটার সময় অপারেশন থিয়েটারের নার্স আমাকে ছেলে সন্তানের কথা বলেছে। তাহলে ওয়ার্ডে এসে মেয়ে সন্তান হয় কিভাবে? আমি এই ডিএনএ টেস্টটুস মানিনা। মেয়ে সন্তানই যখন হয়েছে তাহলে তারা আমাকে এতো টাকা খরচ করাইছে কেন। তারা আগে বল্লেই হইতো যে মেয়ে হয়েছে। এখন আমার ছেলে সন্তানই দিতে হবে, না হয় মেয়ে আমি নিবো না। প্রয়োজনে বউকে ছেড়ে দিবো, তারপরেও এই মেয়ে সন্তান আমি ঘরে নিবো না। তবে এবিষয়ে যারা গাফলিতি করেছেন তাদের বিরুদ্ধে মনু মিয়া আবারও লিখিত অভিযোগ দিবেন বলে প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।

এবিষয়ে শিশু বিভাগের প্রধান ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের ( মমেক ) অধ্যক্ষ মোঃ আনোয়ার হোসেন এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ডিএনএ পরীক্ষার পর ওই নবজাকটিকে তার মায়ের কুলে ফিরিয়ে দিয়েছি। ডিএনএ টেস্টে মা ও বাবার সাথে সবই মিলেছে। হাসপাতালের রেজিস্ট্রার খাতায় মেয়ের বদলে ছেলের ভুল তথ্য লেখায় এমন সমস্যায় পরতে হয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। মায়ের বুকে তার সন্তানকে ফিরিয়ে দিতে পেরেছি বলে আমরা অনেক আনন্দিত। তবে এমন ভুল তথ্য যাতে কখনো না লেখা হয় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে বলেও জানান এই শিশু চিকিৎসক।

উল্লেখ্য, গত ২০১৭ সালের ১৮ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগের ২৫নং ওয়ার্ড থেকে ওই ছেলে নবজাতককে চুরি করে বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ করেন নবজাতকের বাবা মনু মিয়া। তিনি জানান, গত ১০ ডিসেম্বর দুপুর একটার দিকে তার স্ত্রী পাপিয়া আক্তারকে মমেক হাসপাতালের প্রসূতি বিভাগে ভর্তি করেন। ওইদিন বিকেল পাঁচটার সময় অপারেশন থিয়েটারে তার ছেলে সন্তান জন্ম নেয় ।

এ সময় নবজাতকটি একটু অসুস্থ্য হওয়ায় হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে তাকে পাঠানো হয়। কিন্তু সোমবার দুপুরে ছুটির সময় তাদের মেয়ে নবজাতক সরবরাহ করা হলে নবজাতকের মা তখন বেকে বসেন। এরপর তোলপাড় শুরু হয় হাসপাতালে। খবর পেয়ে শিশু ওয়ার্ডে আসেন বিভাগীয় প্রধান ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. আনোয়ার হোসেন ও হাসপাতালের উপ-পরিচালক লক্ষী নারায়ন।

এদিকে মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর ) সকালে মমেক হাসপাতালের প্রশাসন বিভাগের প্রধান কোতুয়ালি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পর ওইদিনই সেই নবজাতক বদল পরিবারের দাবি প্রমাণের জন্য ডিএনএ টেস্ট করার জন্য মা, বাবা ও মেয়ের রক্ত সংগ্রহ করে নমুনা পাঠানো হয় ঢাকা। তবে ঘটনাটি তদন্তের জন্য একটি তদন্ত কমিটিও গঠন হয়েছিল বলে জানান মমেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক লক্ষী নারায়ন।

অন্যদিকে পরিবারের দাবি অনুযায়ী নবজাতক বদলের কথা স্বীকার করে মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর ) সকালে হাসপাতালের উপ-পরিচালক লক্ষী নারায়ন দাস বলেন, কর্তৃপক্ষের প্রধান কাজ হলো মায়ের কোলে প্রকৃত বাচ্চা ফেরত দেয়া। এ জন্য তারা মামলা করেছেন। যা যা করা দরকা সবই করবেন। তদন্ত কমিটিও গঠন করা হবে বলে জানান লক্ষী নারায়ন।

এদিকে শিশু বিভাগের প্রধান ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা.আনোয়ার হোসেন বলেছেন, ‘প্রয়োজনে মেয়ে নবজাতক, তার পিতা ও মাতার ডিএনএ টেস্ট করা হবে।

দেখা হয়েছে: 433
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!