fbpx

|

এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে গায়েবী প্রতিবেদন নিয়ে তোলপাড়

প্রকাশিতঃ ৯:২২ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১৮, ২০১৮

আলিফ হোসেন, তানোরঃ
রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) আসনের সাংসদ ওমর ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে গায়েবী প্রতিবেদন প্রণয়নের প্রতিবাদে সংসদীয় আসনের নির্বাচনী এলাকায় প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে প্রতিনিয়ত প্রতিবাাদের মাত্রা বেড়েই চলেছে প্রতিবাদের ঝড়ে রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তাল হয়ে উঠেছে।

এদিকে চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার তানোরের কাঁমারগা ইউপির মাদারীপুর বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কাঁমারগা ইউপি আওয়ামী লীগ সভাপতি ফজলে রাব্বাী ফরহাদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও কলমা ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়ন।

আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা শুধু নয় প্রতিবাদে অংশ নিয়েছেন দলমত নির্বিশেষে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ। ফলে মানববন্ধব, পথসভা, বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদসভার মাধ্যমে প্রতিনিয়ত এসব প্রতিবাদে নতুন নতুন মাত্রা যোগ হচ্ছে। রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদ ওমর ফারুক চৌধূরীকে মাদকের পৃষ্ঠপোষক বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত খবর প্রকাশ করায় এসব প্রতিবাদের সূত্রপাত। ওমর ফারুক চৌধূরী এমপি নির্বাচিত হবার পরপরই নির্বাচনী এলাকায় মাদকের বিরুদ্ধে জিরো ট্রলারেন্স ঘোষণা দিয়ে যাত্রা-পুতুল নাচ, ভ্যারাইশো ও জুয়াসহ বিভিন্ন অসামাজিক কর্মকান্ড নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন যা এখানো চলমান রয়েছে।

সূত্র জানায়, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধূরী প্রায় কুড়ি বছর রাজশাহী আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন। তিনি একবার প্রতিমন্ত্রী ও দু’বার সংসদ সদস্যর (এমপি) দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এছাড়াও তিনি সংসদের স্বরাস্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য। রাজনীতিতে আসার অনেক আগেই তিনি(সিআইপি) নির্বাচিত হয়েছে, হয়েছেন জেলার শ্রেষ্ঠ স্বচ্ছ আয়কর দাতা, বৃক্ষপোরণে অনন্য অবদান রাখায় একবার রাস্ট্রপতি ও একবার প্রধানমন্ত্রী পদক অর্জন করেছেন, একবার রাজশাহী চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে। যে মানুষটির ওপর এতোগুলো দায়িত্ব রয়েছে তাহলে তিনিই তো রাজশাহীতে সরকার বা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধি।

তাহলে যারা তাঁর বিরোধীতা করছে বা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে তারা তো প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে সরকার বা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরোধীতা ও তার বিরুদ্ধেই ষড়যন্ত্র করছে তায় নয় কি ?। এখন প্রশ্ন হলো যারা রাস্ট্রের কর্মচারি হয়ে রাস্ট্র প্রধানের প্রতিনিধির বিরুদ্ধে কোনো সুনিদ্রিষ্ট তথ্য উপাত্ত ছাড়াই উদেশ্যেপ্রণোদিত হয়ে এমন বানোয়াট প্রতিবেদন দিয়েছেন তারা কারা ? আসলে তাদের উদেশ্যে কি ? এসবের নেপথ্যে কারা সম্পৃক্ত রয়েছে তাদের পরিচয় এই জনপদের মানুষ জানতে চাই।

এদিকে নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে উদ্বেগ-জনক তথ্য পাওয়া গেছে, এসব মানুষের অভিমত রাজনীতিতে নেতৃত্ব নিয়ে (সাবেক) এক পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে এমপি ফারুকের মতবিরোধ সৃষ্টি হয়। তিনি জানেন জনসমর্থন বা নেতৃত্ব গুনে এমপি ফারুকের পরিবর্তে তিনি কখনই এমপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন বা নেতৃত্ব পাবেন না। আবার এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে হাইকমান্ডের কাছে দাঁড় করানোর মতো শক্ত কোনো অভিযোগও নাই। তিনি জানেন সরল পথে রাজনীতি করে তিনি কখনোই এমপি ফারুকের বিকল্প নেতৃত্ব হয়ে উঠতে পারবেন না। যেই ভাবনা সেই কাজ এমপিকে বির্তকিত করতে শুরু করেন প্রাসাদ ষড়যন্ত্র। আর তাঁর নেপথ্যে মদদে প্রশাসনের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা তার কিছু চ্যালা-চামুন্ডা বা অনুগতরা গণমানুষের নেতা এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে এমন গায়েবী প্রতিবেদন তৈরী করেছেন এমন দাবি সাধারণ মানুষের।

অপরদিকে এসব প্রতিবাদ কর্মসূচিতে অংশ নেয়া হাজারো মানুষের দাবি এই প্রতিবেদন কারা করেছে, কিসের ভিত্তিত্বে করেছে, কোনো করেছে, এদের নেপথ্যে কারা রয়েছে এবং এমপির বিরুদ্ধে উঙ্খাপতি অভিযোগের সত্যতা প্রমাণে ব্যর্থ হলে তাদের দৃষ্টান্তমূল শাস্তির দাবি করে প্রতিবাদ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে। রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং সাংসদ বিলাস ও প্রচার বিমূখ সৎ রাজনৈতিকের প্রতিকৃতি, কর্মী-জনবান্ধব রাজনৈতিক নেতা এমপি ওমর ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে এসব মনগড়া খবর প্রকাশের পর এমপির রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে কোনো নেতিবাচক প্রভাব তো পড়েই নি বরং সাধারণ মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে আরো বেশি ঐক্যবদ্ধভাবে এমপি মূখী হয়ে উঠেছে।

এদিকে একজন কর্মী ও জনবান্ধব নেতার বিরুদ্ধে খবর প্রকাশের আগে তৃণমূলের মতামত যাচাই না করে একটি মাত্র প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করায় সংশ্লিষ্টদের নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে নানা ধরণের মূখরুচক গুঞ্জন বইছে, তারা বলছে ঙারা এমন খবর প্রকাশ করেছে তাদের সঙ্গেও তো মাদকসেবী, মাদক ব্যবসায়ী, দূর্নীতিবাজ আমলা ও রাজনৈতিক নেতার ছবি রয়েছে তাহলে তাদের এখন কি ? বলা হবে। এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে এমন ভিত্তিহীন খবর প্রকাশের প্রতিবাদে সাধারণ মানুষ প্রতিবাদমূখর হয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ, প্রতিবাদসভা ও মানববন্ধন কর্মসূচির মাধ্যমে তাদের প্রতিবাদ অব্যাহত রেখেছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, রাজনীতি আসার অনেক আগেই এমপি ওমর ফারুক চৌধূরী (সিআইপি) নির্বাচিত হয়েছে, হয়েছেন জেলার শ্রেষ্ঠ স্বচ্ছ আয়কর দাতা, বৃক্ষপোরণে অনন্য অবদান রাখায় একবার রাস্ট্রপতি ও একবার প্রধানমন্ত্রী পদক অর্জন করেছেন, একবার রাজশাহী চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি, দুবার রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এছাড়াও একবার শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও দু’বারের সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করে চলেছেন। তাঁর প্রায় দীর্ঘ কুড়ি বছরের রাজনৈতিক জীবনে কখনো কি ? তাঁর মাদকের কোনো চালান ধরা পড়েছে, বা কখনো কি ? তাঁর কোনো অনুগত মাদকসক ধরা পড়ে তার নাম বলেছে, বা তাঁর গাড়ি কিংবা গাড়ি বহরে কখনো কি ? কোনো মাদকদ্রব্য কেউ পেয়েছে, তিনি কখনো কি ? কোনো মাদক ব্যবসায়ীর পক্ষে কোনো সুপারিশ করেছেন এমন ঘটনার কথা কেউ কখনোই বলতে পারবেন না। তাহলে যে রাজনৈতিক নেতার দীর্ঘ কুড়ি বছরের রাজনৈতিক জীবনে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি বা সূত্র হয়নি সেই নেতা কি ? ভাবে মাদকের পৃষ্ঠপোষক হয় ?। তাদের দাবি অনুযায়ী যদি এসব অভিযোগের সত্যতা থাকে তাহলে তো তাঁর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে একটি বারের জন্য হলেও মাদক সংশ্লিষ্ট কোনো ঘটনা ঘটা ছিল স্বাভাবিক। কিন্তু এখানো তাঁর বিরুদ্ধে তেমন কোনো ঘটনার সূত্রপাত হয়নি কেউ বলতেও পারবেন না।

এমপি ওমর ফারুক চৌধূরীর কঠোর অবস্থান ছিল সব ধরণের অশ্লীলতা-বেহায়াপনা, জুয়া ও মাদকের বিরুদ্ধে যা এখানো রয়েছে। এমপি নির্বাচিত হবার পর তিনি মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে তাঁর নির্বাচনী এলাকায় লটারি জুয়া, যাত্রা-পুতুল নাচের নামে অশ্লীল নুত্যর আসর ও অপসংস্কৃতির অসুস্থ প্রতিযোগীতা বন্ধ করে দিয়েছেন। বাঙ্গালির নিজস্ব সংস্কৃতি ও সুস্থ বিনোদের জন্য এসবের পরিবর্তে তিনি প্রচলন করেছেন বিজ্ঞান মেলা, স্কুল বিতর্ক প্রতিযোগীতা, বৈশাখী মেলা, বইমেলা, চাকরির মেলা, উন্নয়ন মেলা, নবান্ন ও পিঠা উৎসব ইত্যাদি। অথচ এমন সৃজনশীল রাজনৈতিক নেতার পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজ ও আকাশচুম্বি জনপ্রিয়তা নষ্টের জন্য তাকে মাদকের পৃষ্ঠপোষক বলে প্রচারণা করা হয়েছে যার সঙ্গে তাঁর বিন্দুমাত্র সংশ্লিষ্ট নাই এমনকি কেউ প্রমাণ দিতে পারবেন না।

তিনি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে প্রকাশ্যে ঘোষণা করেছেন যদি কেউ কখনো তার বিরুদ্ধে কোনো মাদক বা অপসংস্কৃতির সংশ্লিস্ট প্রমান করতে পারেন তাহলে তিনি রাজনীতিই ছেড়ে দিবেন। আর এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে উঙ্খাপিত এসব অভিযোগ সাধারণ মানুষ বা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী তো দুরের কথা আওয়ামী লীগ বিরোধীরাও বিশ্বাস করেন না। আওয়ামী লীগ বিরোধীরাও অপকটে শিকার করেছেন তার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অন্যকোনো অভিযোগ থাকতে পারে, কিন্তু মাদক বা সমাজবিরোধী কোনো কর্মকান্ডের সঙ্গে তিনি লিপ্ত থাকতে পারেন না এটা একবারেই বানোয়াট ও উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত। এছাড়াও তাঁর অবৈধ অর্থলিপসা না থাকায় যেই রাজনৈতিক নেতা সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য প্রায় কয়েক কোটি টাকা মূল্যর তাঁর ব্যক্তিগত সম্পত্তি সেচ্ছায় দান করেছেন ও এমপির হবার পর থেকে এখানো সরকারি সম্মানি ভাতার একটি টাকাও তিনি না নিয়ে সেই টাকা সমাজের হতদরিদ্রদের দান করে চলেছেন সেই নেতার কি এমন অর্খের প্রয়োজন যে তিনি মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত হবেন ?।

স্থানীয় রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের অভিমত, এক দিনে বা বছরে কেউ মাদকের পৃষ্ঠপোষক হয় না এর জন্য বিস্তর নেটওয়ার্ক ও দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন। অথচ এমপি ফারুকের দীর্ঘ কুড়ি বছরের রাজনৈতিক জীবনে কখনো কেউ তার বিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কোনো প্রশ্ন তোলেনি হঠাৎ রাতারাতি তিনি কি ভাবে মাদকের পৃষ্ঠপোষক হলেন। যদি তাই হয় তাহলে এই কুড়ি বছরের রাজনৈতিক জীবনে কি একটি বারের জন্য হলেও বিষয়টি প্রকাশ পেতো না। অথচ আগামি সংসদ নির্বাচনের পূর্ব মুহুর্তে এমন কর্মী ও জনবান্ধব নেতার বিরুদ্ধে মাদকের পৃষ্ঠপোষক বলে কোনো প্রচার করা হলো এর নেপথ্যে কি ? অন্যকিছু রয়েছে। এক জন রাজনৈতিক নেতার কারো বাড়িতে দাওয়াত খাওয়া বা কারো সঙ্গে (সলফি) ছবি উঠানো নিয়ে তাকে বিচার করা যায় না। তাহলে তো প্রতিনিয়ত দেশের রাস্ট্র প্রধান থেকে শুরু করে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী বা এমপিদের সঙ্গে অনেকে অহরহ ছবি উঠাচ্ছেন তাই বলে ওই সব ছবির ব্যক্তির সঙ্গে তাদের তুলনা করা হবে। এক জন রাজনৈতিক নেতার মঞ্চে কত মানুষ আসে তাদের সবার সঙ্গেই কি তাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।

তাহলে তো রাজকার গোলাম আজম, জঙ্গি নেতা বাঙ্গলা ভাই, মুসাবিন সমশের, পাকিস্থানের সামরিক জান্তা আইয়ুব খাঁন, এরশাদ শিকদার বা হিটলালের সঙ্গে যাদের ছবি রয়েছে সেই ছবি দেখে কি ছবির ব্যক্তির সঙ্গে তাদের তুলনা করা হবে ? সেটা কি ? ঠিক ?। এমনকি যারা এসব প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তাদের সঙ্গে অনেক মাদকসেবী, দূর্নীতিবাজ আমলা ও রাজনৈতিক নেতা, গণমাধ্যম কর্মী, জনপ্রতিনিধি ও ব্যবসায়ীসহ নানা শ্রেণী-পেশার মানুষের ছবি রয়েছে, তারাও তো ডেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বির্তকিত মানুষের বাড়িতে দাওয়াত খেয়েছেন তাহলে এদের সঙ্গে কি ? তাদের তুলনা করা হবে ? এমন হাজারো প্রশ্ন তুলেছে সাধারণ মানুষ।

অনুসন্ধানে উদ্বেগজনক তথ্য পাওয়া গেছে, রাজশাহী-১ আসনে এমপি নির্বাচিত হবার পরপরই তোষামদির রাজনীতি না করায় এমপি ফারুক চৌধূরীর সঙ্গে আওয়ামী লীগের এক শ্রেণীর নেতার মতবিরোধ সৃষ্টি হয়। তারা জানেন যে এখানে এমপি ফারুক চৌধূরীর কোনো বিকল্প নাই এমপির বিরুদ্ধে এমন কোনো শক্ত অভিযোগ নাই যেটা হাইকমান্ডের কাছে উঙ্খাপন করে তার মনোনয়ন ঠেকানো যায়। তার পর থেকে এমপিবিরোধী শিবির তার বিরুদ্ধে শক্ত অভিযোগ দাঁড় করাতে নানা অপতৎপরতায় লিপ্ত হয়। এমনকি এমপির বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে তারা হাইকমান্ডের কাছে লিখিত অভিযোগ করেও তা প্রমাণে ব্যর্থ হয়ে হাইকমান্ডের কাছে ধরা খায়। এর পর থেকেই তারা এমপিকে বির্তকিত করতে তার বিরুদ্ধে শক্ত অভিযোগ দাঁড় করাতে নানা অপতৎপরতায় জড়িয়ে পড়ে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, এমপি ওমর ফারুক চৌধূরীর মাদকবিরোধী দুটি সুপারিশ নিয়ে পুলিশের একশ্রেণীর কর্মকর্তার সঙ্গে মতবিরোধ দেখা দেয়। তার একটি সুপারিশ ছিল কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা সরকারি কলেজে ভর্তির পুর্বে ও সরকারি চাকরিতে যোগদানের আগে তাদের রক্তের নমূনা পরীক্ষা করতে হবে তারা মাদক সেবি কি না সেটা প্রমাণের জন্য। এটা করা হলে সমাজের উচ্চ শিক্ষিতরা কেউ আর মাদক সেবনে জড়াবে না। অপর সুপারিশটি ছিল অধিকাংশক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটককৃত মাদক পরীক্ষায় ফেন্সিডিল হয়ে যায় পানি, হেরোইন হয়ে যায় পাউডার, গাঁজা হয়ে যায় খড়ি ইত্যাদি।

এসব অনিয়ম দূর করতে তিনি আটককৃত একই মাদক একই সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিভাগের তিনটি বিভাগে পরীক্ষার সুপারিশ করেন যেটা একশ্রেণীর পুলিশ কর্মকর্তা সহজে মেনে নিতে পারেনি। আর একশ্রেণীর এসব পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন আরেক (সাবেক) পুলিশ কর্মকর্তা আর তাঁর সঙ্গে কারা যোগ দিয়েছেন সেটা তো প্রায় সবারই জানে। মূলত এই চক্রটি এমপি ফারুক চৌধূরীকে বির্তকিত করে তার দলীয় মনোনয়ন আটকাতে ঐক্যবদ্ধ প্রচেস্টা শুরু করেন। তাদের সেই প্রচেস্টায় এমপি ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে এমন প্রতিবেদন পাঠাতে সহায়তা করেছে বলে নির্বাচনী এলাকার মানুষের অভিমত।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জৈষ্ঠ এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশ সব সম্ভাবের দেশ, যেখানে বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে জাল টাকা পাওয়া যায়, পরীক্ষার আগের রাতে প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়, বিচারকের স্বাক্ষর জাল করে আসামি জামিন হয়, সেখানে একজন এমপিকে বির্তকিত করতে মনগড়া প্রতিবেদন দেয়া এটা তো মামুলি ঘটনা। তিনি বলেন, যে যাই বলুক এমপি সাহেব মাদকের পৃষ্ঠপোষক এই কথা তার বিরোধীরাও বিশ্বাস করবে না, কারণ মাদক ও অসামাজিক কর্মকান্ডে তিনি বরাবরই জিরো টলারেন্স।

দেখা হয়েছে: 758
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!