fbpx

|

ময়মনসিংহে গণধর্ষণের দায়ে ধর্ষক গ্রেফতার

প্রকাশিতঃ ১:১৩ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ২৪, ২০১৭

মোঃ কামাল, ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলায় চাঞ্চল্যকর গার্মেন্টস কর্মী গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী ধর্ষক শফিককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১৪। শনিবার (২৩ ডিসেম্বর ) দুপুর ৩ টার দিকে ময়মমসিংহ র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়নের র‌্যাব-১৪ সদর দপ্তরে এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন র‌্যাব-১৪ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা স্বপন ।

তিনি জানায়, মোবাইল ফোনে প্রেম করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১১ ডিসেম্বর এক গার্মেন্টস কর্মীকে শফিক ও তার সহযোগী সাহেব আলী মুক্তাগাছা উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের একটি বাঁশঝাড়ে নিয়ে গণধর্ষণ করে।

 

ঘটনার পরদিন মুক্তাগাছা থানায় ওই গার্মেন্টসকর্মী একটি ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন। পর শুক্রবার (২২ ডিসেম্বর ) রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১৪ এর একটি আভিযানিক দল অভিযান চালিয়ে শফিককে মুক্তাগাছার কালিবাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে। মামলার অপর আসামী সাহেব আলী পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান এসপি স্বপন।

 

উল্লেলখ্য, মুক্তাগাছা উপজেলায় প্রেমের টানে প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে এসে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ওই তরুণী। এ ঘটনার দুইদিন পর বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) রাতে ধর্ষণের শিকার তরুণী বাদী হয়ে মুক্তাগাছা থানায় একটি নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত দ্বিতীয় আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

 

মুক্তাগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহাম্মদ মোল্লা এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ওই নারী স্বামী পরিত্যক্তা। তিনি একজন গার্মেন্টস কর্মী ও এক সন্তানের জননী। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, মুক্তাগাছা উপজেলার জামগড়া গ্রামের আজাহারের ছেলে শফিক মিয়ার (২২) সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে মোবাইল ফোনে কথা হতো। এক পর্যায়ে সেই কথা থেকেই প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ওই তরুণীর বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর উপজলোর জটাবাড়ি গ্রামে।

 

আরও জানা যায়, গত সোমবার (১১ ডিসেম্বর) শফিক ওই গার্মেন্টস কর্মীকে মুক্তাগাছা উপজেলার জামগড়া গ্রামে আসতে বলেন। তার কথা মতো ওই তরুণী প্রেমের টানে শফিকের বাড়ি চলে আসেন। পরে বেড়ানোর কথা বলে সন্ধ্যায় পাশের এলাকার কালিকাপুর গ্রামে নিয়ে যায়। সেখানে মধ্যরাত পর্যন্ত শফিক একাধারে ধর্ষণ করে। পরে শফিক ও তার বন্ধু সাহেব আলী (২২) পালাক্রমে জোরর্পূবক ওই তরুণীকে আবারও ধর্ষণ করে।

 

এদিকে রাত সাড়ে ৩টার সময় ওই নির্যাতিতা তরুণীর আত্মচিৎকার শুনে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে। এ সময় দুই ধর্ষক পালিয়ে যায়। পুলিশ ওই ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে ওইদিন রাতেই ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ( মমেক) হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) ওই তরুণী নিজেই বাদী হয়ে মুক্তাগাছা থানায় মামলা দায়ের করেন।

দেখা হয়েছে: 478
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!