fbpx

|

নড়াইল নতুন বছরের উপহার ৯ কোটি টাকার বিশুদ্ধ পানির নিশ্চয়তা পাচ্ছে পৌরবাসী!

প্রকাশিতঃ ৩:৪১ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ০১, ২০১৮

উজ্জ্বল রায় নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■
নড়াইল মেয়র জাহাঙ্গীর বিশ্বাসের নতুন বছরের উপহার ৯ কোটি টাকার বিশুদ্ধ পানির নিশ্চয়তা পাচ্ছে পৌরবাসী-৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন পানি শোধনাগারের (ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট) কাজ প্রায় শেষের দিকে। শুধু বর্জ্য পানি অপসারণের ড্রেনেজ ব্যবস্থার কাজ বাকি রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, তিন-চার মাসের মধ্যেই সব কাজ সম্পন্ন হবে। তার পরই শোধনাগারটি চালু করা যাবে। এটি হলে নড়াইল পৌর এলাকার ২ হাজার ৯৪৩ জন গ্রাহকের বিশুদ্ধ পানির চাহিদা মিটিয়ে আশপাশের এলাকার মানুষও উপকৃত হবেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ব্যবস্থাপনায় ২০১৪ সালের অক্টোবর নড়াইল শহরের কুরিগ্রাম এলাকায় ৮ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যয়ে পানি শোধনাগার নির্মাণের কাজ শুরু হয়। শি-এমটি অ্যান্ড এসএস কনসোর্টিয়াম নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নির্মাণের কাজ করছে। এরই মধ্যে পানি শোধনের সব অবকাঠামো, বিদ্যুত্ ব্যবস্থা, পাম্পসহ প্রয়োজনীয় বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলী আবুল হাসেম শেখ জানান, পৌরসভার তিনটি পাম্প থেকে পানি এ শোধানাগারে আসবে। এরপর দুবার রাসায়নিক মেশানোসহ মোট ছয়টি ধাপ শেষে পানি শোধন হবে। পানি শোধনের পর বর্জ্য পানি ড্রেনের মাধ্যমে অপসারণ করা হবে। এ শোধনাগার থেকে ঘণ্টায় ৩৫০ ঘনলিটার পানি সরবরাহ করা সম্ভব হবে।

নড়াইল পৌরসভার বর্তমানে যে চাহিদা রয়েছে, এটি তার চেয়ে তিন গুণ বেশি। বর্তমানে নড়াইল পৌরসভার ভূগর্ভস্থ পানিতে অতিরিক্ত আয়রন এবং সাপ্লাই পানিতে ময়লা। নতুন প্লান্ট চালু হলে পৌর এলাকার মানুষের বিশুদ্ধ খাবার পানি পাওয়া নিশ্চিত হবে। পৌর এলাকার গৃহিণী সায়লা সারমিন বলেন, পৌরসভার সাপ্লাই পানিতে অতিরিক্ত আয়রন আর ময়লা। এ পানি ব্যবহারের জন্যও উপযোগী নয়। তাছাড়া পানি সরবরাহ ব্যবস্থাও ভালো নয়। ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টের বিশুদ্ধ পানি পাওয়া আমাদের জন্য ভাগ্যের ব্যাপার!

নড়াইল নতুন বছরের উপহার ৯ কোটি টাকার বিশুদ্ধ পানির নিশ্চয়তা পাচ্ছে পৌরবাসী!-Aporadh-Barta

নড়াইল নতুন বছরের উপহার ৯ কোটি টাকার বিশুদ্ধ পানির নিশ্চয়তা পাচ্ছে পৌরবাসী!-Aporadh-Barta

নড়াইল সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল বাসার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, নড়াইলের পানিতে অতিরিক্ত আয়রন, লবণাক্ততা রয়েছে। এ পানি পান করলে ডায়রিয়া, আমাশয়সহ বিভিন্ন রোগ হতে পারে। এ পানিতে কাপড়ও নষ্ট হয়ে যায়। পানি শোধনাগার হলে ধনী-গরিব সবাই এ বিশুদ্ধ পানির সুবিধা পাবে।

শোধনাগার নির্মাণের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম কায়েচ আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, শোধনাগারের বর্জ্য পানি অপসারণের ড্রেনেজ ব্যবস্থা নিয়ে কিছুটা জটিলতা ছিল, এখন কেটে গেছে। ৭০ লাখ টাকা ব্যয়ে ড্রেন নির্মাণ করা হবে। সবদিকে ১৩ কিলোমিটার এলাকার মানুষ এ পানির সুবিধা পাবেন। ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত এ প্রকল্পের সময় থাকলেও চার মাসের মধ্যে বাকি কাজ সম্পন্ন হয়ে যাবে বলে আশা করছেন তিনি। এদিকে শোধনাগার নির্মাণ শেষে সেটি হস্তান্তর করা হবে নড়াইল পৌরসভার কাছে।

এ ব্যাপারে মেয়র জাহাঙ্গীর বিশ্বাস অপরাধ বার্তাকে বলেন, প্রথম অবস্থায় পৌরসভার ২ হাজার ৯৪৩ জন গ্রাহক এ বিশুদ্ধ পানির সুবিধা ভোগ করবেন। পরবর্তীতে গ্রাহক বাড়বে। বর্তমানে পৌরসভার সাপ্লাই পানির জন্য মাসিক ২০০ টাকা বিল দিতে হয়। তবে ট্রিটমেন্ট প্লান্টের পানি সাপ্লাই লাইনে যুক্ত হলে দাম কিছুটা বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন মেয়র।

দেখা হয়েছে: 482
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!