fbpx

|

ঘুষ নেয়ার সময় ধরা পড়ে নাসির, বেরিয়ে আসছে আরো নাম

প্রকাশিতঃ ১১:৩০ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ২৪, ২০১৮

অনলাইন বার্তাঃ

রাজধানীর লেকহেড গ্রামার স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ঘুষ নেয়ার সময় ধরা পড়েন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচ্চমান সহকারী নাসির উদ্দিন। জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে বন্ধ হয়ে যাওয়া লেকহেড খুলে দেয়ার শর্তে ঘুষের চুক্তি হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। নাসিরের সঙ্গে ছিলেন শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মোতালেব হোসেনসহ আরও তিনজন।

ঘুষ নিয়ে লেকহেড খুলে দেয়ার দায়িত্ব নিয়েছিলেন মোতালেব আর টাকা আদায়ের দায়িত্ব নিয়েছিলেন নাসির। এ ঘটনায় আরও তিন কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতার কথা গোয়েন্দাদের কাছে স্বীকার করেছেন মোতালেব ও নাছির। গতকাল লেকহেড স্কুলের এমডি খালেদ হাসান মতিন, মোতালেব হোসেন ও নাছির উদ্দিনকে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট জিয়ারুল ইসলামের আদালতে হাজির করা হয়।

এ সময় আসামিপক্ষে জামিন আবেদন করা হলে তা নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। তার আগে সোমবার রাতে ডিবি পুলিশের ধানমন্ডি জোনের এসআই মনিরুল ইসলাম মৃধা বাদী হয়ে ঘুষ, দুর্নীতির অভিযোগে বনানী থানায় মামলা করেন।

গ্রেপ্তারের পর তিনজনকে পৃথকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তিনজনই লেকহেড স্কুল খুলে দেয়ার নামে উৎকোচের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন মন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মোতালেব। মোতালেব জানিয়েছেন, মন্ত্রণালয়ের উচ্চপর্যায়ের তিন কর্মকর্তা এতে সহযোগিতা করেছেন। মোতালেব ও নাসিরের মতো টাকার ভাগ পেতেন তারাও।

এ বিষয়ে ডিবি’র যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, গ্রেপ্তার হওয়া তিনজনই ঘুষ লেনদেনের কথা স্বীকার করেছেন। এছাড়া লেকহেড স্কুলের পরিচালক খালিদ হাসান মতিনের বিরুদ্ধে জঙ্গি সম্পৃক্ততা ও জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগ রয়েছে। তদন্তে জঙ্গি সম্পৃক্ততার প্রমাণ পাওয়া গেলে মতিনের বিরুদ্ধে আলাদা করে আরও একটি মামলা করা হবে।

সূত্রে জানা গেছে, লেকহেড স্কুলের মালিকদের বিরুদ্ধে উগ্রবাদে অনুপ্রেরণার অভিযোগ উঠার পর থেকেই এই প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন বিষয়ে তৎপরতা বৃদ্ধি করেন গোয়েন্দারা। ওই স্কুলের আগের মালিক রেজোয়ান হারুন জঙ্গিবাদে অনুপ্রেরণা দিতেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। এই কারণেই গত গত ৫ই নভেম্বর স্কুলটি বন্ধ করে দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু আদালতের শর্ত ভঙ্গ করে দ্রুত স্কুলটি খোলার জন্য তৎপরতা চালান মতিন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে আসিফ নামে মতিনের ঘনিষ্ঠজনের। আসিফের মাধ্যমেই কথা হয় শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মোতালেব হোসেনের সঙ্গে। মোতালেব জানিয়ে দেন ‘টাকা দিলে অনেক কিছুই সম্ভব। কত টাকা দেবে সেটা হচ্ছে কথা।’ মোতালেবের ইচ্ছানুসারেই ১৬ই ডিসেম্বর বনানীর ডি-ব্লকের ১৩/১৫ নম্বর সড়কের ৩৯ নম্বর বাড়িতে আরএম গ্রুপের অফিসে অনুষ্ঠিত হয় বৈঠক। সেখানে উপস্থিত ছিলেন, মোতালেব হোসেন, নাছির ও মতিন। মতিনের গাড়িতে করেই সচিবালয় থেকে নিয়ে যাওয়া হয় তাদের।

বৈঠকে ৭ লাখ টাকা দাবি করেছিলেন মোতালেব। অনেককে ভাগ দিতে হবে জানিয়ে এই টাকা দাবি করেন তিনি। আলোচনার একপর্যায়ে ৪ লাখ ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে স্কুলটি দ্রুত খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। কাজের গতির সঙ্গে সঙ্গে টাকাও দেয়া হবে। সিদ্ধান্ত অনুসারে চার দফায় টাকা দেয়া হবে তাদের। ১৮ই ডিসেম্বর মতিনের অফিস থেকে ৫০ হাজার টাকা উৎকোচ নেন নাছির উদ্দিন। ২৫শে ডিসেম্বরে দ্বিতীয় দফায় ৫০ হাজার নেন নাছির। তৃতীয় দফায় টাকা নেয়া হয় ১১ই জানুয়ারি। ওইদিন ২ লাখ টাকা নেন নাছির।

উৎকোচর বাকি ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা ২২শে জানুয়ারি নেয়ার কথা ছিল। সেই অনুসারেই মতিনের বনানীর অফিসে হাজির হয় নাছির। বিষয়টি নজরে ছিলো ডিবি’র। খবর পেয়ে বনানীর ডি-ব্লকের ১৩/১৫ রোডের ৩৯ নম্বর বাড়ির আশপাশে অবস্থান নেয় ডিবি’র সদস্যরা। বিকাল ৫টায় ওই অফিস থেকে বের হন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অফিস উচ্চমান সহকারী নাছির উদ্দিন। এ সময় তাকে আটক করে ডিবি। জিজ্ঞাসাবাদে টাকা গ্রহণের বিষয়টি স্বীকার করে তখনই। তার কাছে উৎকোচের নগদ ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা জব্দ করা হয়।

মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, টাকাগুলো নাছিরের নীলরঙের জ্যাকেটের ভেতরে বাম পাশের পকেটে একটি খামের মধ্যে ছিলো। তাৎক্ষণিকভাবে নাছিরকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান চালানো হয় মতিনের অফিসে। গ্রেপ্তার করা হয় মতিনকে। মতিনের কাছ থেকেই পাওয়া যায় চাঞ্চল্যকর তথ্য। এই টাকা যাবে মোতালেবের কাছে। তারপর ভাগ-বাটোয়ারা হবে। মন্ত্রণালয় থেকে গুরুত্বপূর্ণ নথি স্কুল কর্তৃপক্ষকে বেআইনিভাবে দেয়ার কাজটি হচ্ছিলো মোতালেবের তত্ত্বাবধানেই।

মতিনের ফোনের কললিস্ট থেকে দেখা যায় দীর্ঘদিন থেকেই এই তিন জনসহ আরও কয়েক কর্মকর্তার মধ্যে নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে। ডিবি দাবি করেছে, ওইদিন রাত পৌনে ৮টায় ধানমন্ডি থেকে মোতালেবকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পর উৎকোচ গ্রহণের বিষয়টি স্বীকার করেন মোতালেব। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আরও দুই-একজন কর্মকর্তা এই টাকার ভাগ পেতেন।

ডিবি’র যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন জানান, মামলা এখন থেকে তদন্ত করবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সরকারি কর্মচারীদের ঘুষ লেনদেনের মামলা দুদকের শিডিউলভুক্ত। আসামিদের গ্রেপ্তারের পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আদালতে না পাঠানোর বিষয়ে তিনি জানান, রোববার রাতে গ্রেপ্তারের পর তাদের কাছ থেকে নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। তা জব্দ তালিকায় নথিভুক্ত করতে সময় লাগে। এই কারণে সোমবার সকালে তাদের গোয়েন্দা কার্যালয়ে আনা হয়। সেই হিসেবে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই আসামিদের আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

মোতালেব-নাসির বরখাস্ত আরেক কর্মচারী উধাও:

ওদিকে দুর্নীতির অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়ায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সঙ্গে দুজনের অবৈধ উপায়ে সম্পদ অর্জনের বিষয়ে তদন্তে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এই দুজনকে নিয়ে তুমুল আলোচনার মধ্যেই গত দুদিন ধরে দপ্তরে আসছেন না মন্ত্রণালয়ের বেসরকারি মাধ্যমিক শাখার অফিস সহকারী আবু আলম খান। তাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী খুঁজছে বলে সূত্র জানিয়েছে। তাদের আশ্রয়-প্রশয় দেয়ায় মন্ত্রণালয়ের বেসরকারি বিদ্যালয় শাখার একজন যুগ্ম সচিবকে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে। তিনি শিক্ষা ক্যাডার থেকে পদোন্নতি পেয়ে যুগ্ম সচিব হয়েছেন।

গতকাল বিকালে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (পিও) মো. মোতালেব হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করে আদেশ জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অপরদিকে মন্ত্রণালয়ের গ্রহণ ও বিতরণ শাখায় প্রেষণে থাকা উচ্চমান সহকারী পদে কর্মরত নাসির উদ্দিনের প্রেষণ বাতিল করেছে মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে ফৌজদারি অপরাধের মামলা হওয়ায় কর্মচারী নাসিরকেও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে সাময়িক বরখাস্ত করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

গতকাল শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাউশির আলাদা আদেশে দুজনকে বরখাস্ত করা হয়। মন্ত্রণালয়ের আদেশে বলা হয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগে কর্মরত শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মো. মোতালেব হোসেন ফৌজদারি মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ায় তাকে বি.এস.আর (পার্ট-১) এর বিধি ৭৩ এর নোট-২ অনুযায়ী চাকরি হতে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো। প্রেসিডেন্টের আদেশক্রমে মন্ত্রণালয়ের ওই আদেশে স্বাক্ষর করেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ড. অরুনা বিশ্বাস।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা নাগাদ এ রিপোর্ট লেখাকালে নাসির উদ্দিনের বরখাস্তের আদেশ জারি হয়নি। তবে মাউশি অধিদপ্তরের উপপরিচালক (প্রশাসন) শফিকুল ইসলাম সিদ্দিকী গতকাল সন্ধ্যায় বলেন, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে কর্মচারী নাসিরের বরখাস্তের আদেশ প্রস্তুত করা হয়েছে। এখন শুধু স্বাক্ষরের অপেক্ষা। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ গতকাল দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, তাদের সাসপেন্ড করে দেয়া হবে। পুলিশের মামলার বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা সাময়িক বরখাস্ত থাকবেন।

দুই কর্মীর ‘দুর্নীতি’র তদন্তে দুদক :

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মীর ‘দুর্নীতি’র তদন্ত শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন। মঙ্গলবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত শুরুর কথা জানান দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

তিনি বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে- আমরা কিছু তথ্য পেয়েছি, সেটা আপনাদের (গণমাধ্যম) কল্যাণে আমাদের কাছে এসেছে, আমাদের তদন্ত কাজ অলরেডি শুরু হয়েছে। ওই দুই কর্মকর্তা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত বলেই দুদকের এই উদ্যোগ নয় জানিয়ে ইকবাল মাহমুদ বলেন, আমাদের তদন্ত সর্বক্ষেত্রেই বিস্তৃত। কেবল সরকারিই নয়, বেসরকারি ক্ষেত্রেও আমাদের কার্যক্রম বিস্তৃত। অবৈধ সম্পদ অর্জন ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদের অর্জন এবং ভোগ দখলে রাখা সম্পূর্ণভাবে বে-আইনি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওই দুই কর্মীর সঙ্গে ঢাকার লেকহেড গ্রামার স্কুলের অন্যতম মালিক খালেদ হাসান মতিনের বিরুদ্ধেও ওই ঘুষের মামলা করে পুলিশ। জঙ্গিবাদে পৃষ্ঠপোষকতার অভিযোগে বন্ধ থাকা ওই স্কুল খুলে দিতে ঘুষ লেনদেনের অভিযোগ আনা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।-গোনিউজ

দেখা হয়েছে: 408
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!