fbpx

|

নীলফামারীতে শিক্ষক হত্যাকারী জেএমবি সদস্য গ্রেফতার

প্রকাশিতঃ ১১:১৮ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১৮, ২০১৮

ক্রাইম রিপোর্টার নীলফামারীঃ
নিষিদ্ধ ঘোষিত জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) ইয়ানতকারী গ্রুপের সদস্য ও শিক্ষক মাধব চন্দ্র রায়ের হত্যাকান্ডের পরিকল্পনাকারী তৈয়ব আলীকে (৬৫) নীলফামারীর কাউন্টার টেররিজম ইউনিট গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃত জেএমবি সদস্য ইয়ানতকারী তৈয়ব আলী নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা ইউনিয়নের তিলাই গ্রামের মৃত আসানততুল্লার ছেলে।

বুধবার(১৭ই জানুয়ারী) দুপুরে নীলফামারীর পুলিশ সুপার জাকির হোসেন খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গ্রেফতারকৃত তৈয়ব আলীর বাড়িতে বিভিন্ন স্থানের জেএমবির সদস্যরা এসে গোপনে আশ্রয় নিতো ও বিভিন্ন হত্যাকান্ডের গোপন বৈঠক করতা বলে জানা গেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালের ৯ আগষ্ট সকালে জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাধব চন্দ্র রায় (৪৫) উপজেলা শহরের বাড়ি হতে ইজিবাইকে করে স্কুলে যাচ্ছিলেন। এ সময় ওই ইজিবাইকে অপরিচিত আরো চারজন লোক এসে উঠে। ইজিবাইকটি স্কুলের অদুরে ঘাটের পার মমিনুরের ডাঙ্গায় এলে ইজিবাইকে থাকা যাত্রীবেশী জঙ্গীরা প্রকাশ্যে মাধব চন্দ্রের পেটে ও মাথা লক্ষ্য করে ২ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এরপর জঙ্গীরা আগে থেকে সেখানে অপেক্ষামান দুইটি মোটরসাইকেল যোগে পালিয়ে যায়।

ওই ঘটনায় আহত অবস্থায় শিক্ষক মাধবচন্দ্র রায়কে জলঢাকা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘটনার ৫ দিন পর গত বছরের ১৪ আগষ্ট রাত সারে ৯টায় ওই শিক্ষকের মৃত্যু হয়।

ঘটনার পর মাধব চন্দ্রের ছোট ভাই রতন চন্দ্র বাদী হয়ে জলঢাকা থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলাটি পরবর্তিতে সিআইডিতে হস্তান হলে সিআইডির তদন্তে ঘটনাটি বের হয়ে আসে। তদন্তের সুত্র ধরে ২০১৬ সালের ২১ মে নীলফামারী ডিবি পুলিশের অভিযানে জেএমবি সদস্য নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা ইউনিয়নের ঘাটেরপাড় এলাকার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে তরিকুল ইসলামকে (২৭) গ্রেফতার করা হয়।

সে আদালতে শিক্ষক মাধব চন্দ্র রায়কে হত্যার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করে। সেখানে তিনি বেশ কয়েকজন জেএমবির সদস্য সহ তৈয়ব আলীর জরিত থাকার কথা প্রকাশ করেছিল। কিন্তু তৈয়ব আলী ঘটনার পর হতে ছিল পলাতক। আদালত তৈয়ব আলীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করে। গোপন সংবাদ পেয়ে দীর্ঘদিন পর মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) রাতে রাতে নীলফামারী শহরের আনন্দবাবুর পুল এলাকা হতে তৈয়ব আলীকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তৈয়ব আলী জানায় তিনি পুলিশের চোখ ফাকি দিয়ে তিনি তাবলিক জামাতে নাম লিখিয়ে দেশের বিভিন্নস্থানে আত্মগোপনে ছিলেন ।নীলফামারী সদর থানার ওসি বাবুল আকতার জানান আমরা জেএমপির ইয়ানতকারী তৈয়ব আলীকে শিক্ষক মাধব চন্দ্র রায়ের মামলার তদন্তকারী নীলফামারীর সিআইডির নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

নীলফামারী সিআইডি ইন্সপেক্টর মাহাবুব আলম জানান গ্রেফতারকৃত জেএমবি সদস্য তৈয়ব আলীকে জিজ্ঞাসবাদের জন্য আদালতের কাছে ৫ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 328
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!