fbpx

|

ধানের চারা রোপন যন্ত্র “মনেদ” কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে

প্রকাশিতঃ ৫:০৪ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ৩১, ২০১৭

মদন প্রতিনিধিঃ

যান্ত্রিক পদ্ধতিতে ধান চাষ জনপ্রিয় করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি)’র উদ্যোগে রোববার নেত্রকোনার মদন উপজেলায় আলম বাজার এলাকায় কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করণের আওতায় মাঠ প্রদশর্নী এবং যন্ত্রের মাঠ পরীক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার মৈধাম গ্রামের মোঃ ফকরুল মিয়ার বোরো জমিতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার কাম দানাদার ইউরিয়া প্রয়োগ যন্ত্রের মাঠ প্রদশর্নী অনুষ্ঠিত হয়।

এতে কৃষকদের মাঝে এই যন্ত্রের উপকারিতা সর্ম্পকে ব্যাপক সাড়া জেগেছে। পরে শাহাপুর -২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করণের আওতায় মাঠ প্রদশর্নী অনুষ্ঠান কৃষি অফিসার মোঃ গোলাম রাসুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক বিলাস চন্দ্র পাল,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ওয়ালীউল হাসান, ফার্ম মেশিনারি এন্ড পোস্টহারভেস্ট টেকনোলজি বিভাগের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আনোয়ার হোসেন , বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান পিন্টু, মৎস্য কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন,কৃষক মোঃ ফকরুল ইসলাম প্রমূখ।

সভায় রাইস ট্রান্সপ্লান্টার কাম দানাদার ইউরিয়া প্রয়োগ যন্ত্রের কার্যকারিতা সম্পর্কে যন্ত্রের উদ্ভাবক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, রাইস ট্রান্সপ্লান্টার কাম দানাদার ইউরিয়া প্রয়োগ যন্ত্রের সাহায্যে জমিতে একই যন্ত্রে একসাথে চারা রোপন ও ইউরিয়া সার প্রয়োগ করায় কৃষকের অর্থ ও সময় সাশ্রয় করা সম্ভব। মাটির গভীরে সার প্রয়োগ করা যায় বিধায় প্রচলিত পদ্ধতির তুলনায় শতকারা ৩০ ভাগ ইউরিয়া সার কম লাগে। যান্ত্রিক পদ্ধতিতে রোপন উপযোগী ট্রে’র মাধ্যমে ধানের চারা উৎপাদন করার কলা-কৌশল সম্পর্কেও তিনি বিস্তারিত আলোচনা করেন। কৃষক বাড়ির আঙ্গিনায়ও বীজতলা তৈরী করতে পারে।

রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের সাহায্যে বোরো মৌসুমে ট্রেতে উৎপাদিত মাত্র ২৫ দিন বয়সী চারা রোপন করা যায়। চারার উচ্চতা সাধারণত ১২-১৫ সে.মি. হলেই তা মেশিনে রোপনের উপযুক্ত হয়। উদ্ভাবিত যন্ত্রের সাহায্যে ঘন্টায় প্রায় ১.৫-২.০ বিঘা জমিতে চারা রোপন ও দানাদার ইউরিয়া সার প্রয়োগ করা সম্ভব। প্রচলিত পদ্ধতির তুলনায় উদ্ভাবিত এই যন্ত্র ব্যবহার করে ধানের চারা রোপন ও ইউরিয়া সার বাবদ বিঘা প্রতি কৃষকের সাশ্রয় হবে প্রায় ১৫০০ টাকা।

ধানের চারা রোপন যন্ত্র "মনেদ" কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে-Aporadh-Barta

ধানের চারা রোপন যন্ত্র “মনেদ” কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে-Aporadh-Barta

বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান পিন্টু বলেন, বোরো মৌসুমে কৃষক সাধারণত জমিতে বিঘা প্রতি ৩৮ কেজি ইউরিয়া সার প্রয়োগ করে থাকে, রাইস ট্রান্সপ্লান্টার কাম দানাদার ইউরিয়া প্রয়োগ যন্ত্রের সাহায্যে ২৮ কেজি/বিঘা ইউরিয়া সার প্রয়োগ করেও প্রচলিত পদ্ধতির তুলনায় ১০ ভাগ বেশী ধান উৎপাদন করা যায়। এতে জ্বালানি খরচ প্রতি ঘন্টায় ঘন্টায় প্রায় ১ লিটার।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ওয়ালীউল হাসান বলেন, কৃষির মানোন্নয়ন খাদ্যে স্বয়ংস্পম্পূর্ণতা অর্জন, পুষ্টি এবং নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থা নিশ্চিতকল্পে ফসল উৎপাদনে লাগসই কৃষি যন্ত্রপাতি ব্যবহার তথা কৃষি যান্ত্রীকায়ণ এখন সময়ের দাবি। বর্তমানে দেশের কৃষির বিভিন্ন স্তরে প্রযুক্তির ছোঁয়া লাগলেও কৃষি উন্নয়নে খামার যান্ত্রিকীকরণে আমরা এখনও কাঙ্খিত অগ্রগতি অর্জন করতে পারি নি। দ্রুত জনসংখ্যা বৃদ্ধি, কৃষি জমির ক্রমহ্রাস, কম উৎপাদনশীলতা এবং বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন প্রভৃতি কৃষির অগ্রগতিকে বর্তমানে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন করেছে। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রকৃতি নির্ভর কৃষিকে প্রযুক্তি নির্ভর অর্থাৎ যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে কৃষির উৎপাদনশীলতা ও শস্যের নিবিরতা বৃদ্ধি করে তা টেকসই করতে হবে। কৃষিকে লাগসই যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য করতে হবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক বিলাস চন্দ্র পাল বলেন, রাইস ট্রান্সপ্লান্টার ব্যবহারে একদিকে যেমন কৃষি শ্রমিকের অভাব দুর হবে অন্যদিকে শস্য উৎপাদন অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে, এতে কৃষকরা উপকৃত হবে। বর্তমান সময়ে যান্ত্রিকীকরণ আজ সময়ের দাবিতে পরিনত হয়েছে। সেক্ষেত্রে দেশের চিরাচরিত কৃষি ব্যবস্থাকে আধুনিক তথা যান্ত্রিক কৃষি ব্যবস্থায় রূপান্তরের বিকল্প নেই বলে তিনি মতামত ব্যক্ত করেন।

দেখা হয়েছে: 514
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!