fbpx

|

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো হত্যা লাদেনের তদারকিতেই

প্রকাশিতঃ ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন | ডিসেম্বর ৩১, ২০১৭

অনলাইন বার্তাঃ

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো এবং তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জেনারেল পারভেজ মোশাররফকে হত্যার চক্রান্ত তদারকি করতেই নিহত আল-কায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেন আফগানিস্তানে চলে যান বলে দাবি করেছে দেশটি গণমাধ্যমগুলো।

পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের তদন্তে পাওয়া তথ্যের সূত্রে গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, হত্যা পরিকল্পনা ঠিকঠাক তদারকি করতেই প্রতিবেশী দেশ আফগানিস্তানে গিয়ে থাকা শুরু করেন লাদেন। পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় বিস্ফোরক বিন লাদেনের দূতের মাধ্যমে সরবরাহ করা হয়েছিল।

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের রাওয়ালপিন্ডিতে অবস্থিত লিয়াকতবাগের বাইরে নির্বাচনী প্রচারণার র‌্যালিতে ২০০৭ সালের ২৭ ডিসেম্বর গুলি ও বোমা হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। ওই হামলায় নিহত হন বেনজির ভুট্টো। বেনজির হত্যাকাণ্ডের ঠিক দশম বার্ষিকীতেই এমন তথ্য সামনে এলো।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, হত্যা পরিকল্পনার এ তথ্য বেনজির হত্যার আগে ডিসেম্বরেই পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছিল সেনাবাহিনী এবং আইএসআই। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের কাছে তিনটি প্রতিবেদন এবং ওবামার বাসস্থান থেকে পাওয়া চিঠিগুলোও জমা দেয়া হয়েছিল।

ওই গোপন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে মন্ত্রণালয়কে সতর্ক করে বলা হয়েছিল, প্রেসিডেন্ট মোশাররফ, পাকিস্তান পিপল’স পার্টি প্রধান বেনজির ভুট্টো এবং জামিয়াত উলামায়ে ইসলাম ফজল প্রধান ফজলুর রেহমানকে হত্যার নির্দেশ দিন বিন লাদেন।

এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চিঠিটা পাঠানো হয়েছিল আইএসআইয়ের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট সেলের সমন্বয় পরিচালক কর্নেল মুহাম্মাদ ইমরান ইয়াকুবের কাছে ২০০৭ সালের ১৯ ডিসেম্বর। প্রেসিডেন্ট মোশাররফ, বেনজির ভুট্টো ও ফজলুর রহমানের হত্যা ষড়যন্ত্র শিরোনামের ওই চিঠিতে লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) জাইঘাম ইসলাম ভাট সরাসরি হত্যা চক্রান্তের কথা জানিয়ে সতর্ক করেছিলেন।

চিঠিতে লেখা ছিল, সে (ওসামা বিন লাদেন) মুসা তারিক নামের পাকিস্তানের নাগরিক এবং মুলতানের অধিবাসী তার এক চরের মাধ্যমে ওয়ারিজিস্তান হয়ে বিস্ফোরক পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে। বিস্ফোরকগুলো হত্যা চক্রান্ত বাস্তবায়নের কাজে ব্যবহৃত হবে। ২২ ডিসেম্বর(রবিবার) ওই ব্যক্তি দেরা ইসমাইল খান এলাকায় থাকবে।

চিঠির শেষ তিন বাক্যে লেখা ছিল, ওসামা বিন লাদেন নিজেই পুরো ষড়যন্ত্রটি তদারক করছে এবং এ কারণেই সে আফগানিস্তানে চলে গেছে।

জরুরিভাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ জানিয়েছিল আইএসআই। সংবাদ প্রতিবেদনে জানানো হয়, তথ্যগুলো এতটাই গুরুত্ববহ ছিল যে আইএসআইয়ের চিঠির কপি রাওয়ালপিন্ডির জেনারেল হেডকোয়ার্টারের সামরিক গোয়েন্দা অধিদপ্তরের জেনারেল স্টাফ (জিএস) ব্রাঞ্চ পাঠানো হয়েছিল।

চিঠি পাওয়ার পরদিন ২০ ডিসেম্বর জিএস ব্রাঞ্চ থেকে তৎকালীন স্বরাষ্ট্র সচিব সৈয়দ কামাল শাহের কাছে একটি চিঠি পাঠান। এমনকি বেনজির হত্যাকাণ্ডের ৬ দিন আগেও আরেকবার সতর্ক করে তৎকালীন চিফ অব জেনারেল স্টাফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল সালাহউদ্দিন সাত্তির লেফটেন্যান্ট কর্নেল স্টাফ খুররাম শাহজাদের সইসহ আরেকটি চিঠি পাঠানো হয় মন্ত্রণালয় বরাবর।

কিন্তু এত সতর্কবার্তার সুফল যে বেনজির ভুট্টো পাননি তা না বলাই বাহুল্য। বেনজির হত্যাকাণ্ডের দু’দিন পর বিন লাদেনের কাছে একটি চিঠি পৌঁছায়: আমরা আমাদের জামিয়া হাফসা ও লাল মসজিদে ভাইবোনদের হয়ে প্রতিশোধ নিয়েছি। চিঠিটা লাদেনের বাসা থেকে উদ্ধার হয়েছিল।

২০১১ সালের মে মাসে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে ইউএস নেভি সিলের এক গোপন অভিযানে নিহত হন সামা বিন লাদেন

দেখা হয়েছে: 747
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!