fbpx

|

রাজশাহীতে নীতিমালা লঙ্ঘন করে ফসলি জমিতে পুকুর খনন

প্রকাশিতঃ ৬:৩২ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১২, ২০১৮

নাজিম হাসান, রাজশাহী প্রতিনিধি:
রাজশাহীতে সরকারী নিষেধাক্কা অমান্য করে অবৈধ ভাবে আবাদি জমিতে পুকুর খনন করায় ফুঁসে উঠেছে কৃষকেরা। তানোর ও মোহনপুরের সীমান্ত সংলগ্ন বিলচন্ডি এলাকায় শিব নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ হুমকিতে ফেলে ফসলি জমিতে পুকুর খননের অভিযোগ উঠেছে।

অপরদিকে গোদাগাড়ীর উপজেলার ৬নং মাটিকাটা ইউনিযনের কিশমত শাকপাল মোজার প্রায় ১৫ বিঘা জমিতে পুকুর খনন করার প্রতিবাদে গত বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ১১ টার দিকে এলাকার শত শত কৃষক এক হয়ে বিক্ষোভ করে বাঁধা প্রদান করে। এতে বর্ষার সময় পানির গতিপথ বন্ধ হয়ে যাবে। যার ফলে পিরিজপুর ও শাকপাল মোজার প্রায় ৮০০ বিঘা আবাদি জমির বর্ষার পানিতে জলা বদ্ধ হয়ে যাবে।

এদিকে সংশি¬ষ্ট বিভাগের এক শ্রেণীর কর্মকর্তার যোগসাজশে প্রকাশ্যে দিবালোকে (স্কেলেটার) মেশিন দিয়ে এসব পুকুর খনন করা হলেও দেখার কেউ নেই। মোহনপুর উপজেলার খাঁনপুর গ্রামের প্রভাবশালী আলম হোসেন প্রায় ৩০ বিঘা ফসলি জমি নস্ট করে এসব পুকুর খনন করছেন। এসব পুকুর খননের ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

কিন্তু খননকারি সরকার দলীয় সমর্থক হওয়ায় প্রকাশ্যে কেউ কোনো প্রতিবাদ করতে পারছে না, অনেকক্ষেত্রে প্রতিবাদ করেও প্রতিকার তো মিলছেইনা বরং উল্টো নানান ভাবে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। দেশের সরকার প্রধান ও প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন এক ছটাকর কৃষি জমি নস্ট বা শ্রেণী পরিবর্তন করে কোনো অবস্থাতেই কোনো স্থাপনা-কলখারখানা বা নির্মাণ বা অকৃষি কাজে ব্যবহার করা যাবে না। অথচ সরকার প্রধানের সেই নির্দেশনা উপেক্ষা করেই কৃষি জমিতে চলছে পুকুর থননের মহোৎসব। বিষয়টি যেনো দেখার কেউ নেই।

স্থানীয়দের অভিযোগ তবে কি সরকার প্রধানের ঘোষণার কোনো মূল্য নাই, না কি এরা সরকার প্রধানের থেকেও শক্তিশালী, নইলে প্রকাশ্যে দিবালোকে বিনা বাধায় কি ভাবে এসব পুকুর খনন করা হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, অপরিকল্পিত ভাবে এলাকায় পুকুর খননের কারণে এলাকায় দেখা দিচ্ছ জলাবদ্ধতা। মাঠে যতটুকু কৃষি জমি বাঁকি ছিল সেই জমিতে গবাদি পশু চরানো হতো। কিন্তু কয়েকদিন থেকে এসব জমিতেও শুরু হয়েছে পুকুর খনন। ফলে গবাদি পশু চরানো যাচ্ছে না। এতে আমাদের জীবন ধারণের পথ ক্রমশ কঠিন থেকে কঠিনতর হয়ে পড়ছে।

অপরিকল্পিত ভাবে একের পর এক পুকুর খনন ও বাণিজ্যক ভাবে ব্যবহার হওয়ার বাড়ীর পুরুষরা কর্মহীন হয়ে পড়ছে। তারা এক সময় এসব জমিতে কৃষি শ্রমিকের কাজ করতেন। কিšত্ত এসব ফসলি জমিতে পুকুর খনন হওয়ার তাদের কৃষি শ্রমিকের কাজ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এমনকি বাড়ির গবাদি পশু খাওয়ানোর মতো কোনো মাঠ থাকছে না। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের কর্মের সন্ধানে এলাকাছাড়া হওয়া ব্যতিত কোনো উপায় নাই।

এভাবেই অত্যন্ত আবেগপ্রবণ হয়ে কথাগুলো বলছিলেন তানোর ও মোহনপুর উপজেলার সীমান্ত সংলগ্ন বিলচন্ডি এলাকার বাসিন্দারা। একাধিক পান বরজের মালিক বলেন, এসব পুকুর খনন করা হলেও জলাবদ্ধতার কারণে এলাকায় পান চাষ অনেকটা হুমকির মূখে পড়বে। তারা এসব পুকুর খনন বন্ধের জন্য সংশি¬ষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে আলম হোসেন বলেন, তিনি উচ্চ আদালত থেকে অনুমোদন নিয়ে ও যথাযথ নিয়মানুসারে এসব পুকুর খনন করছেন। তিনি বলেন, তার আগে অনেবেই এখানে পুকুর খনন করেছে, তাহলে তিনি পারবেন না কোনো। মোহনপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বলেন, কৃষি জমি নস্ট করে বাণিজ্যিকভাবে পুকুর খননের কোনো সুযোগ নাই।

এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ নেওয়াজ অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য ভুমি কমিশনার (এসিল্যান্ড) গোদাগাড়ীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 470
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!