fbpx

|

নড়াইলে প্রগতি বিদ্য নিকেতন এ যেন মায়ের মমতা

প্রকাশিতঃ ২:১৯ পূর্বাহ্ন | ডিসেম্বর ২৩, ২০১৭

উজ্জ্বল রায় নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■
নড়াইলঃ ২০ বছর ধরে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে নড়াইলের সুনাম ধন্য বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রগতি বিদ্যা নিকেতন। শিক্ষক রুপি ১০ জন মমতাময়ী মা (মহিলা শিক্ষিকারা) এই বিদ্যালয়টিকে সমাজে তুলে ধরেছেন একটি মেধাবী তৈরীর কারখানা হিসাবে। ইতো মধ্যে এই বিদ্যালয় থেকে হাতে খড়ি নিয়ে দেশের সর্বউচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চতর ডিগ্রি নিচ্ছে অসংখ্য শিক্ষার্থীরা।

 

বুয়েট, কুয়েট, বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে এবং ঢাকা ইউনিভার্সিটি, খুলনা ইউনিভার্সিটিসহ দেশের বিভিন্ন সুনাম ধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চতর ডিগ্রি নিচ্ছে এই প্রগতি বিদ্যা নিকেতন থেকে সুনামের সাথে ৫ম শ্রেনী পর্যন্ত শিক্ষা নেওয়া ছেলে মেয়েরা।

 

নড়াইল শহরের মহিষখোলা এলাকায় বাংলাদেশ ক্রিকেটের রাজপুত্র জাতীয় দলের নির্ধারিত ওয়ানডে ফরমেটের সফল অধিনায়ক সেরা বাঙ্গালি নড়াইল এক্সপ্রেস খ্যাত মাশরাফি বিন মর্তুজার বাড়ির পশ্চিমপাশে চারিদিকে উচু প্রাচীর দিয়ে ঘেরা ২য় তলা বিশিষ্ট ভরনে স্কুলের ৯টি শ্রেনী কক্ষ রয়েছে। পুরা ভবনেই চলে স্কুলের কার্যক্রম। এখানে প্লে থেকে ৫ম শ্রেনী পর্যন্ত মোট ৮ শ্রেনীতে কোমলমতি ছেলেমেয়েদের যত্ন সহকারে পাটদান করানো হয় এখানে। গরমের কথা চিন্তা করে প্রতিটা কক্ষের ছেলেমেয়েদের জন্য রয়েছে ফ্যানের ব্যাবস্থা।

 

লেখাপড়ার পাশাপাশি ছেলেমেয়েদের খেলাধুলা করার জন্য রয়েছে খেলাধুলা করার নিদৃষ্ট স্থান। শিশুরা যাতে খেলতে খেলতে রাস্তায় চলে না আসে সেই জন্য স্কুলে ভবনের চারিদিকে রয়েছে উচু প্রাচীর দেওয়া। একটি মাত্র গেটে সার্বক্ষতি নজর রাখার জন্য আছে স্কুলের আইয়া। স্কুল বাউন্ডরির মধ্যেই রয়েছে অবিভাবকদের বসার জন্য আলাদা একটি ঘর। এই স্কুলের শিক্ষকেরা জানান, এখানে প্রতিটা শ্রেনী কক্ষের জন্য আলাদা আলাদা শিক্ষক রয়েছে।

 

সর্ব মোট ৮টি শ্রেনীতে পাঠদান করানো হলেও শিক্ষক রয়েছে ১১জন। এখানকার সব শিক্ষকই মহিলা। শিক্ষার্থীদের বেধা বিকাশের জন্য স্কুলে লেখাপড়ার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক চর্চা করানো হয়। নিয়মিত খেলাধুলা করারও সুযোগ রয়েছে এখানে। ১৬ ডিসেম্বর ২৬ মার্চসহ বিভিন্ন দিবসে এই বিদ্যালয়ের ছেলেমেয়েরা সরকারী প্রোগ্রামে অংশগ্রহন করে। এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অসখ্য বার ১৬ ডিসেম্বর ও ২৬ মার্চে সরকারী প্রোগ্রামে অংশ গ্রহন করে পুরুস্কর পেয়েছে। প্রতিবছরই ছেলেমেয়েদের চাহিদার কথা বিবেচোনা করে বিভিন্ন এলাকা ছাত্রছাত্রী এবং অবিভাবকদের নিয়ে শিক্ষা সফরের আয়োজন করা হয়। প্রতিবছরই এই স্কুল থেকে শতভাগ ছেলে মেয়ে ভাল রেজাল্ট করে।

 

সমাপনি পরিক্ষায় এই স্কুল থেকে নিয়মিত বৃত্তি পেয়ে থাকে। এই স্কুলে প্লে থেকে ৫ম শ্রেনী পর্যন্ত সুনামের সাথে লেখাপড়া শেষ করেছেন মহিষখোলা এলাকার রায়হানা জামান তমা। সে এখন দেশের সর্বচ্চো বিদ্যাপিট ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে উচ্চোত ডিগ্রি নিচ্ছে। তমার সাথে কথা হলে সে জানায়, প্রগতি বিদ্যা নিকেতন থেকেই তার শিক্ষা জীবন শুরু। এখান থেকেই সে ৫ম শ্রেনী পর্যন্ত লেখা পড়া করেছে। এই বিদ্যালয় থেকেই সে ৫ম শ্রেনীতে বৃত্তি পেয়েছিল বলেও জায়ায় তমা। এই স্কুল থেকে ৫ম শ্রেনী শেষ করা আর এক ছাত্র তাহসিন রফিদ নিরব। নিরব এখন খুলনা ভার্সিটিতে পড়ে।

 

নিরবের সাথে স্কুলের বিষয় জানতে চাইলে সে জানায়, এই স্কুলের প্রতিটা শিক্ষকই মায়ের মত। মায়ের মমতায়ই এই স্কুলে শিক্ষা দেওয়া হয়। প্রতিটা ম্যাডামই সকল শিক্ষার্থীদের সাথে খুব ভাল আচরন করে। একটা বিষয় একবার বুঝতে না পারলে শিক্ষকেরা বার বার বোঝানোর চেষ্টা করে। জীবনে প্রথম প্রগতি বিদ্যা নিকেতনে শিক্ষা অর্জন করার সুযোগ পেয়েছি বলেই আজ খুলনা ভার্সিটিতে পড়ার সুযোগ পেয়েছি বলেও জানায় নিরব।

 

ঢাকা সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে পড়ছে এই স্কুল থেকে হাতে খড়ি নেয়া আর এক শিক্ষার্থী নোশিন নওয়ার। সে জানায়, শিক্ষা জীবনের প্রথম প্রগতি বিদ্যা নিকেতনে লেখাপড়া করেছি বলেই মাধ্যমিক স্কুলে ও কলেজে ভাল ফলাফল করে আজ ডাক্তারী পড়ার যোগ্যতা অর্জন করেছি। যশোর মেডিকেল কলেজের প্রত্যশা ইসলামও এই স্কুলের শিক্ষার্থী ছিল। সে জানায়, এই স্কুলের প্রতিটি শিক্ষক বন্ধুর মত। কোন শিক্ষকই কখনও রেগে কথা বলেনা। কোন কিছু বুঝতে না পারলে ম্যাডামরা অনেক চেষ্টা করে সেটা বোঝানোর চেষ্টা করে। এই মেধাবী তৈরীর কারখানার আর এক নক্ষত্র সাকিব হাসান। সে এখন বুয়েটে উচ্চোতর ডিগ্রি নিচ্ছে।

 

সাকিব জানায়, প্রগতি বিদ্যা নিকেতনে যদি কোন খারাপ ছাত্রছাত্রী ভর্তী হয় তাহলে এই স্কুলের শিক্ষকদের আন্তরিক চেষ্টায় সেই খারাপ ছাত্রছাত্রীও দিন দিন মেধাবী হয়ে যায়। তার ভাষাই এই প্রগতি বিদ্যা নিকেত একটি সত্যিকারের মেধাবী তৈরীর কারখানা। শুধু মাত্র তমা, নিরব, সাকিব, নোশিন ও প্রত্যাশাই নয়। এই স্কুল থেকে হাতে খড়ি নেয়া এই রকমের অসংখ্য বেধাবীরা বুয়েট, কুয়েট, বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে এবং ঢাকা ইউনিভার্সিটি, খুলনা ইউনিভার্সিটিসহ দেশের বিভিন্ন সুনাম ধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চতর ডিগ্রি নিচ্ছে।

 

অবিভাবরেরা আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, স্কুলটিতে ছেলেমেয়েদের অনেক যতœ করে লেখাপড়া শেখানো হয়। সারাবছর ছেলেমেয়েদের নিয়মিত ক্লাস হয়। চারিদিকে প্রাচীর দেয়া এবং মুল গেটে গেটম্যান থাকায় ছেলেমেয়েরা রাস্তায় যেয়ে একসিডেন্ট করার ভয় নেয়। অবিভাবকেরা আরও জানান, মাঝে মাঝে সোনা যায় অনেক স্কুলেই পরিক্ষার আগে প্রশ্নদিয়ে ছেলেমেয়েদের রেজাল্ট ভাল করা হয়। কিন্তু এই বিদ্যালয়টিতে কখনও এমন করানো হয়না বলেই জানেন তারা। যার কারনে প্রতিটা ছেলেমেয়েরই পরিক্ষায় ভাল ফলাফল করতে হলে লেখাপড়া করেই ভাল ফলাফল করতে হয়। এতে ছেলেমেয়েরা এখান থেকে অনেক কিছু সিখতে পারে।

 

এই স্কুলের প্রধান শিক্ষক রিপা আহম্মেদ জানান, একজন শিক্ষার্থী ছোট বেলা থেকে যদি ভাল কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ার সুযোগ পায়। তাহলে তার শিক্ষা জীবন অনেক ভাল হয়। প্রতিটা অবিভাবকের উচিত তার শিশুকে ভাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ার সুযোগ করে দেয়া। তিনি আরও বলেন, প্রগতি বিদ্যা নিকেতনে যে শিশুটি ভর্তি হয় তাকে একজন মেধাবী শিক্ষার্থী হিসাবে গড়ে তোলার জন্য যা যা করা দরকার এখানে সবই করা হয়। শুধু স্কুলেই নয়। শিশুটি বাড়িতে ঠিকমত লেখা পড়া করছে কিনা সেদিকেও নিয়মিত খোজ খরব রাখা হয় অবিভাবকদের মাধ্যমে। স্কুলের সকল শিক্ষকদের কঠর পরিশ্রম ও আন্তরিক চেষ্টাই এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সফলতার কারন বলে জানান তিনি।

দেখা হয়েছে: 438
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!