fbpx

|

রাজশাহীতে আবারোও চালের দাম বৃদ্ধি

প্রকাশিতঃ ২:২৬ পূর্বাহ্ন | ডিসেম্বর ৩১, ২০১৭

নাজিম হাসান,রাজশাহী প্রতিনিধি:
রাজশাহীতে আবারোও চাল নিয়ে চালবাজি করায় ঊর্ধ্বমূল্যের পাগলা ঘোড়া ছুটে চলেছে চালের বাজার। দফায় দফায় চালের মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠার উপক্রম হয়ে উঠেছে।

বর্তমানে রাজশাহীর বিভিন্ন বাজারে মোটা খুচরা চাল প্রতিকেজি হাইব্রীড ৪০, গুটিস্বর্ণা ৪২, এলসি চাল ৪২, পারিজা/ লালস্বর্ণা ৪৩/৪৪, আটাশ চাল ৫৫ থেকে ৫৬, মিনিকেট ৬২ থেকে ৬৪, নাজিরশাইল ৬৮ থেকে ৭০ টাকা দরে আজ শনিবার সকালে বিক্রি করতে দেখাগেছে ব্যবসায়ীদের। একই সাথে মহানগর ও আশেপাশের উপজেলাগুলোতে চালের দাম ক্রমাগত হারে বেড়েই চলেছে। আর এতে করে দিনমজুর ও নিম্ন আয়ের মানুষের নাভিশ্বাস উঠে যাচ্ছে।

চলতি বছর শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত চালের দাম ওঠানামা করেছে। সেপ্টেম্বর মাসের মাঝামাঝিতে এসে চালের দাম বছরের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে। এতে চরম বেকায়দায় পড়েন নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষরা। তবে দর নিয়ন্ত্রণে সরকার আমদানি বৃদ্ধি করতে শুল্ক প্রত্যাহার করে ওএমএসসহ নানা উদ্যোগ গ্রহণ করে। কিন্তু এই উদ্যোগ গুলো খুব বেশি কাজে লাগেনি।

এখন কৃষকের ঘরে ঘরে নতুন আমন ধান। তারপরেও বর্তমানে চালের দাম বাড়ছে। মোটা, মাঝারি ও চিকন চালে প্রতি কেজিতে মানভেদে কমপক্ষে দাম বেড়েছে ৩ থেকে ৫ টাকা। অথচ এর আগে ব্যবসায়ীরা বলেছিলেন, শুল্ক কমলে চালের দামও কমবে। কিন্তু কথার সাথে কাজের কোন মিল নেই। এই ভাবে মিনিকেট, পায়জাম, নাজিরশাইল ও বাসমতি চালের দামও এক লাফে কেজিপ্রতি ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়ে গেছে।

এছাড়া বাজারে পোলাওয়ের চাল কালোজিরা ৯০ টাকা ও চিনিগুড়া চাল ১১০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে ক্রেতারা বলছেন,আমন ধান উঠলেও কমেনি বাজারে চালের দাম। উল্টো দাম বৃদ্ধির অভিযোগ তুলেছে ক্রেতারা। গত বছর এই সময় আমনের নতুন চাল পাইকারিতে প্রতি কেজি বিক্রি হয়ে ছিলো ৩০ টাকা থেকে ৩২ টাকায়। এবার সেই চাল ৪০ থেকে ৪১ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। নতুন আমন ধান থেকে উৎপন্ন মোটা চালের দাম ৫০ কেজির বস্তা দুই হাজার টাকা থেকে বেড়ে ২০৪০-২০৫০ টাকায় পৌঁছেছে।

রাজশাহীতে আবারোও চাল নিয়ে চালবাজি করায় ঊর্ধ্বমূল্যের পাগলা ঘোড়া ছুটে চলেছে চালের বাজার। দফায় দফায় চালের মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠার উপক্রম হয়ে উঠেছে।

পাঠান পাড়া মহল্লার,ক্রেতা শিহাব উদ্দিন জানান, গত কয়েক মাস ধরে চালের দাম যখন বাড়ছিল,তখন আমরা মনে করছিলাম,আমন ধান উঠলে অন্য সব বারের মতো এবারও চালের দাম কমবে। কিন্তু তা হয়নি। আমাদের অভিজ্ঞতা হচ্ছে,মৌসুম শেষে ধান-চালের দাম একধাপ বাড়ে। এবার আমনের মৌসুমে কৃষক ধানের ভালো দাম পেলেও বাজারে চালের দাম কমেনি।

মৌসুম শেষে চালের দাম আরও বাড়বে বলেই মনে হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, গত ৩০ নভেম্বর সরকার অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে ৩৯ টাকা কেজি দরে আমনের তিন লাখ টন চাল সংগ্রহের ঘোষণা দেওয়ার পর মিল গেইটেই এখন চালের দাম প্রতিকেজি ৪১ টাকা হয়েছে। নতুন ধান উঠলেও ঊর্ধ্বমুখী চালের বাজার। ভোক্তাদের প্রত্যাশা ছিল নতুন চাল এলে বাজার হবে নিন্মমুখী। কিন্তু বাস্তবের চিত্র উল্টো।

নতুন ধান উঠলেও কমেনি চালের দাম বরং বেড়েছে। সব মিলিয়ে বিগত বছরগুলোর তুলনায় ধানে বাড়তি দাম পাওয়ায় কৃষকরা খুশির কথা বললেও বাঙালির প্রধান এই খাদ্যপণ্যের দাম আরও বাড়তে পারে বলে শঙ্কা করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা। তাই সাধারণ ক্রেতারা চালের দর নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

দেখা হয়েছে: 410
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!