fbpx

|

রাম রহিমের ‘বাণী’ শুনতে ভক্তদের আবেদন হাইকোর্টে!

প্রকাশিতঃ ৩:৪২ পূর্বাহ্ন | জানুয়ারী ২৫, ২০১৮

অনলাইন বার্তাঃ

বাবা রাম রহিম জেলে যাওয়ার পর থেকেই তার একের পর এক অবৈধ ক্রিয়াকলাপ মিডিয়ায় প্রকাশ পাচ্ছে। বিস্ফোরক, নিজস্ব মুদ্রা, যৌন গুহার পর এবার বাবার বিরুদ্ধে অভিযোগ, শুধু সাধ্বীই নয়- শিশুরাও তার অত্যাচার থেকে ছাড়া পায়নি।এতো কিছুর পরেও তাকে নিয়ে মাতামাতির কমতি নেই তার অনুগামীদের মধ্যে।

রাম রহিমের অনুগামীরা এবার দাবি করেছেন, তারা শুনতে চান জেলবন্দি রামরহিমের ধর্মীয় বাণী। জেলে বসেই যাতে রাম রহিম তার ‘বাণী’ শোনাতে পারেন, তার অনুমতি চেয়ে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টে আবেদন করেছেন রাম রহিমের ভক্তরা। পাঞ্জাবের ভাতিণ্ডার মালওয়া এলাকার ডেরা ভক্তদের এই দাবিতে অবাক হয়েছেন অনেকেই।

ভক্তদের আবেদনে আরো বলা হয়েছে, হরিয়ানা প্রশাসন বা হরিয়ানা হাইকোর্ট যেন রাম রহিমের বাণী টিভিতে সম্প্রচারের ব্যবস্থা করে। যার ফলে তারা রাম রহিমের বাণী শুনতে পাবেন। যদি স্যাটেলাইট চ্যানেলের মাধ্যমেও সম্প্রচার না করা যায়, তাহলে যেন ইন্টারনেটের মাধ্যমে বাণী সম্প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়।

উল্লেখ্য, ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের ডেরা সাচা সওদার এই প্রধান ধর্মগুরুর পুরো নাম গুরমিত রাম রহিম সিং। পাঞ্জাব ও হরিয়ানার শহর ও গ্রামাঞ্চলে ডেরা সাচার বহু কেন্দ্র রয়েছে। ১৯৬৭ সালের ১৫ অগস্ট ভরতের রাজস্থানের গঙ্গানগর জেলার শ্রী গুরুসর মোদিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন রাম রহিম। পড়াশোনা করেন গ্রামের স্কুলেই। তরুণ বয়স থেকেই আশপাশের মানুষের মন জয় করে নেন। বিশেষ করে দলিত ও পিছিয়ে পড়া শ্রেণির মানুষের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় হন রাম রহিম। রক্তদান শিবির, বৃক্ষরোপণের মতো কাজ করে মানুষের মন জয় করতেন তিনি। অনলাইনে যোগের প্রশিক্ষণ দেওয়ায়ও তার সুনাম রয়েছে।

নিজেকে সমাজসেবায় নিয়োজিত করে মেয়েদের জন্য হোস্টেল, হাসপাতাল এবং যৌনকর্মীদের পুনর্বাসনের মতো কাজ করেন এই ধর্মগুরু। ১৯৯০ সালে ডেরা সাচা সৌদা সংগঠনের প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হন। ব্যক্তিজীবনে রাম রহিমের তিন মেয়ে ও এক ছেলে। হরিয়ানার সিরসায় প্রায় ৮০০ একর জমির ওপর তার ডেরা রয়েছে। তার সংস্থা এমএসজি ব্র্যান্ডের অর্গানিক মধু, নুডলস বিক্রি করে। ২০০৩ সালে গিনেস রেকর্ড করে ডেরা সাচা।

বিশ্বের বৃহত্তম রক্তদান শিরিবের আয়োজনের মাধ্যমে সেই গিনেস রেকর্ড হয়। রাজনৈতিক দিক থেকে যথেষ্ট প্রভাবশালী রাম রহিম। ২০১৪ সালে হরিয়ানার নির্বাচনে রাম রহিম বিজেপিকে সমর্থন করেন। বিহারের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির হয়ে প্রচারণায় নামেন তার সমর্থকরা। সন্ন্যাস পোশাকের বদলে চামড়া ও রাইনস্টোন রাম রহিমের খুব প্রিয়। তার পোশাক-আশাকে এ দুটিই বেশি দেখা যায়। রাম রহিমের বিরুদ্ধে রয়েছে তিনটি ফৌজদারি মামলা। ২০০২ সালে সিরসার এক সাংবাদিক রামচন্দ্র ছত্রপতিকে খুনের অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। ওই একই বছরে ডেরার ম্যানেজার রঞ্জিত সিংহকে খুনের অভিযোগ ওঠে। ধর্মীয় গুরু ছাড়াও গায়ক হিসেবে ব্যাপক সুনাম রয়েছে রাম রহিমের।

অভিনেতা হিসেবেও তার পরিচিতি রয়েছে। রাম রহিম ‘এমএসজি : দ্য মেসেঞ্জার’, ‘এমএসজি২ দ্য মেসেঞ্জার’, ‘এমএসজি : দ্য ওয়ারিয়র লায়ন হার্ট’ নামে তিনটি ছবিতে অভিনয় করেন। ব্রিটেনের ওয়ার্ল্ড রেকর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে সম্মানজনক ডক্টরেট ডিগ্রিও লাভ করেন এই ধর্মগুরু।

দেখা হয়েছে: 382
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!