fbpx

|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ৪)

প্রকাশিতঃ ৪:০২ অপরাহ্ন | ফেব্রুয়ারী ০৯, ২০১৮

আলমাছ মুন্সির পাঠানো গাড়ি বাইরে অপেক্ষমান।
মিতুল তার জিনিসপত্র গোছগাছ করছে। শিকড়ের মতো ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সব। একে একে টেনে একত্র করার চেষ্টা করছে। অন্য শিকড় আসছে, তবে তার শূন্যস্থানটুকু অস্তিত্বের স্মৃতি হিসাবে ঝুলে রইলো। এর নাম হয়তো ভাসমান জীবন, পরনির্ভরশীল জীবন। আন্তর্জাতিক ভাষায় শরনার্থী। মানবতার ভাষায় কী বলে তা আমার জানা নেই। হয়তো হতে পারে ন্যাচার অব হিউম্যান লাইফ। যে প্রশ্নের উত্তর মানুষ দিতে পারে না, তা প্রকৃতির উপর চাপিয়ে দেওয়া তার সহজাত ধর্ম।

কাজী বেগম রোকেয়া মিতুলের কাপড়চোপড় ব্যাগে ভাঁজ করে রাখছেন। চোখে টলমল করছে জল। টুম্পা স্কুল থেকে তখনো ফিরেনি। মিতুলের চলে যাওয়াটা সে কিভাবে গ্রহণ করবে, তা তিনি বুঝে উঠতে পারছেন না। মেয়েটা অসম্ভব জেদি ভয়টা এজন্যই। তার বার বার মনে হচ্ছে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। একটা গৃহহারা ছেলের মাতৃশূন্যতা পূরণ করতে চেয়েও পারেননি। কি ক্ষমতা আছে তার একে ধরে রাখার ? না নেই। একটা হিংস্র মানুষ তার সন্তানকে কেড়ে নিচ্ছে অথচ তিনি কিছুই করতে পারছেন না, বাঁধা দিতে পারছেন না। কত অসহায় তিনি, বাস্তব কতো কঠিন, নির্মম!

বাইরে গাড়ির হর্ন শোনা যাচ্ছে। হয়তো ড্রাইভারের ধৈর্য আর নেই নয়তো বসে থাকার সময় নেই, আরো কাজ আছে তার।
মিতুল গোছগাছ শেষে চুপ করে কাজী রোকেয়ার সামনে দাঁড়িয়ে রইলো। পৃথিবীর সব ভাষা আজ ব্যর্থ। বিদায় নেওয়ার প্রয়োজন। কিন্তু কীভাবে, কী বলে? মায়ের কাছ থেকে সন্তান বিদায় নেয় ফিরে আসার জন্য। মাতৃরক্তের অধিকারে সস্তান বলে, মা দোয়া করো, ছুটি পেলেই তোমার কাছে ফিরে আসবো। কিন্তু সে কি বলবে? কোন মায়ের কাছে থেকেই ফিরে আসবে বলে সে বিদায় নিতে পারে না, সবাই তার আপন অথচ কেউ তার নয়। কী নির্মম সত্যের মাঝে তার বসবাস!

কাজী রোকেয়া মিতুলের দিকে তাকিয়ে বললেন, বাবা তোমার চলে যাওয়া আমি মেনে নিতে পারছি না। তুমি আসার পর থেকে আমার মনে হয়েছে আমার হারানো সন্তান ঘরে ফিরে এসেছে। আমার সবসময় মনে হয়েছে আমার সন্তান দুটি নয় তিনটি। এভাবে তোমাকে হারাতে হবে ভাবতে পারিনি। আমার অনেক ইচ্ছা ছিল তোমাকে সাথে করে লন্ডন নিয়ে যাব, সব ব্যবস্থাও করা হয়েছে। কোথা থেকে ঐ রাজাকার আলমাছ মুন্সি এসে তোমাকে ছিনিয়ে নিচ্ছে। তোমার কাকা আপত্তি করলে সে হুমকি দিলো।

মিতুল অবাক হয়ে বললো, কী বলছেন কাকিমা! কাকাতো আমাকে এসব কিছুই বলেননি, তিনি বরং আপনাদের লন্ডন চলে যাওয়ার কথা বলেছেন। আলমাছ মুন্সি আমাকে জোরপূর্বক নিতে চাচ্ছেন, এসব আমি কিছুই জানি না। সে দপ করে বিছানায় বসে বলল, না কাকিমা আমি কিছুতেই যাব না। বিদেশ আমি যেতে পারব না তবে আপনারা যতদিন দেশে আছেন, ততদিন এখানেই থাকব। আপনারা চলে গেলে অন্য কোথাও আশ্রয় খুঁজে নেব। তবু এরকম স্বার্থপর লোকের বাড়িতে আমি যাব না।

কাজী রোকেয়া কাছে এসে মাথায় হাত বুলিয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে বললেন, বাবা তোমার কাকা নিরীহ মানুষ, সবসময় ঝামেলা থেকে দূরে থাকেন। তাছাড়া আলমাছ মুন্সি লোকটা সুবিধার নয়, সে নিজের স্বার্থে যে কোনো জঘন্য কাজ করতে পারে। সব কিছু যেহেতু ঠিকঠাক হয়ে গেছে তোমার কাকাও কথা দিয়েছেন, তখন না গেলে সে খুব হিংস্্র হয়ে উঠবে। তোমার কাকা তোমাকে এসব বলতে মানা করেছিলেন, কিন্তু কী করব, আমি যে মা। কষ্টে বুক ফেটে যাচ্ছে আমার। তাই না বলে পারলাম না।
মিতুলের চোখ অশ্র“সিক্ত, কণ্ঠ বাকরুদ্ধ। যুদ্ধাহত পরাজিত সৈনিকের মতো বলল, আমি যে আপনাদের ছেড়ে কিছুতেই থাকতে পারব না।

তোমার জন্য আমাদের দরজা সবসময় খোলা থাকবে। মায়ের কাছে সন্তান কোনোদিন পর হয় না। সময় পেলেই তুমি চলো এসো। লন্ডন চলে যাওয়ার পরও তোমার সাথে যোগাযোগ থাকবে। তুমি যখনই বলবে তখনই আমরা তোমাকে নিয়ে যাব। টুম্পা আর টগর তোমাকে ছাড়া আর কিছুই বুঝতে চায়না। যদি সম্ভব হয় মাঝে মাঝে এসে ওদের পড়িয়ে যেয়ো। ওরা তো লেখাপড়া ছেড়েই দিয়েছে, আজ স্কুলে পাঠিয়েছি জোড় করে।

মিতুল কিছু বলতে চেয়েছিল, এ সময় ড্রাইভার দরজায় দাঁড়িয়ে বলল, স্যার অনেক দেরি হয়ে যাচ্ছে। বড় সাহেব খুব রাগ করবেন। মিতুল উঠে দাঁড়ালে ড্রাইভার তার ব্যাগ আর বইপত্র গাড়িতে নিয়ে চলল। কাজী রোকেয়া আঁচলে চোখ মুছতে থাকলেন।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 541
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!