|

করোনা আপডেট
মোট আক্রান্ত

৩৫৬,৭৬৭

সুস্থ

২৬৭,০২৪

মৃত্যু

৫,০৯৩

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ৯৭,৮৬০
  • চট্টগ্রাম ১৮,৫১৭
  • বগুড়া ৭,৪৯০
  • কুমিল্লা ৭,৩৭৮
  • ফরিদপুর ৭,০৫৪
  • সিলেট ৬,৬৮৬
  • নারায়ণগঞ্জ ৬,৬৮৫
  • খুলনা ৬,২৮৩
  • গাজীপুর ৫,৩৭৯
  • নোয়াখালী ৪,৯২৫
  • কক্সবাজার ৪,৬৪৪
  • যশোর ৩,৮৩১
  • ময়মনসিংহ ৩,৬৩৭
  • মুন্সিগঞ্জ ৩,৪৬১
  • বরিশাল ৩,৪৩৮
  • দিনাজপুর ৩,৩২৮
  • কুষ্টিয়া ৩,২১৯
  • টাঙ্গাইল ৩,০৫১
  • রাজবাড়ী ৩,০১৩
  • কিশোরগঞ্জ ২,৭৫০
  • রংপুর ২,৭৪৯
  • গোপালগঞ্জ ২,৫৩৬
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২,৪২৯
  • সুনামগঞ্জ ২,৩০২
  • নরসিংদী ২,২৬৯
  • চাঁদপুর ২,২৬৬
  • সিরাজগঞ্জ ২,১৩৫
  • লক্ষ্মীপুর ২,১০৯
  • ঝিনাইদহ ১,৮৯৪
  • ফেনী ১,৮২৯
  • হবিগঞ্জ ১,৭২৩
  • শরীয়তপুর ১,৬৭০
  • মৌলভীবাজার ১,৬৬৮
  • জামালপুর ১,৫১৬
  • মানিকগঞ্জ ১,৪৮৩
  • মাদারীপুর ১,৪৫১
  • পটুয়াখালী ১,৪১১
  • চুয়াডাঙ্গা ১,৪১০
  • নড়াইল ১,৩১১
  • নওগাঁ ১,২৯৫
  • গাইবান্ধা ১,১৪৩
  • পাবনা ১,১১৩
  • ঠাকুরগাঁও ১,০৯৬
  • সাতক্ষীরা ১,০৯৩
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • জয়পুরহাট ১,০৬৯
  • পিরোজপুর ১,০৬৩
  • নীলফামারী ১,০২৫
  • বাগেরহাট ৯৭৯
  • নাটোর ৯৭৩
  • বরগুনা ৯০৬
  • মাগুরা ৮৯৫
  • রাঙ্গামাটি ৮৯৩
  • কুড়িগ্রাম ৮৮৭
  • লালমনিরহাট ৮৪২
  • বান্দরবান ৭৬৬
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৭৬৬
  • ভোলা ৭১৮
  • নেত্রকোণা ৭১৫
  • ঝালকাঠি ৬৯৩
  • খাগড়াছড়ি ৬৬৯
  • মেহেরপুর ৫৯৯
  • পঞ্চগড় ৫৯৬
  • শেরপুর ৪৬৩
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ৭)

প্রকাশিতঃ ৪:২৩ পূর্বাহ্ন | মার্চ ০২, ২০১৮

আরিফ আহমেদ-Arif Ahmed

আজকের প্রভাতটা অরোরার কাছে অন্যরকম লাগলো। কলেজ বন্ধ, কোন তাড়া নেই। সে নদীর দিকের জানালাটা খুলে পর্দা সরিয়ে দিলো। জলে ভেজা শীতল বাতাসটা শরীরে ভুলিয়ে গেলো সুখের পরশ। ইচ্ছে হলো হাত দুটিকে পাখির ডানায় রূপান্তরিত করে নদীর বুকের উপর দিয়ে অনেক দূরে হারিয়ে যেতে। পায়ে যার শিকল লাগেনি মুক্তির স্বাদ তার অজানা।

অরোরার কাছে মুক্তিই এখন সবচেয়ে দামি। কল্পনায় ভর করে সদা-সর্বদা সে বিচরণ করে পৃথিবীর অলিগলি। প্রাচীন পর্দা নয়, আধুনিক সভ্য জগতের উপযুক্ত করেই নিজেকে গড়ে তুলেছে সে। আর মুক্তির তীব্র বাসনা নিয়ে দিনে পর দিন অতিবাহিত করছে। মেয়েদের পিতৃগৃহের চাইতে স্বামীগৃহই অপেক্ষাকৃত স্থায়ী নিবাস। সে রাজ্যটাকে নিজের মতো করে গড়ে তুলতে দৃঢ়প্রত্যয়ী।

এজন্য প্রয়োজন পরনির্ভর না হয়ে স্বাবল¤ী^ হওয়া। নারীমুক্তির পূর্বশর্ত হলো স্বাবলম্বন। এ কারনেই প্রতিকূলতার মধ্যেও সে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে। পরাধীনতার শিকলে আবদ্ধ থেকে নারীমুক্তির কল্পনা বাতুলতা মাত্র। এ দেশের নারীরা মুক্তি চায় অথচ মুক্তির সঠিক পথ চিনে না।

অনেক নারীই তো স্বামীর সাথে ঝগড়া করে হাতে টাকা না থাকার কারণে বাপের বাড়ি পর্যন্ত যেতে পারে না। শেষতক হাত পাতে অত্যাচারিত লোকটার কাছেই। মুক্তি আর সম্মান তার কীভাবে আসবে? এ জগতে সবাই জন্ম নেয় একবার। বন্দি থেকে আগমনের সার্থকতা নষ্ট না করে সুন্দর ধরণীকে দেখা ও উপভোগের অধিকার নারীরও আছে।

অধিকার কেউ কাউকে দেয় না, আদায় করে নিতে হয়। নারীর প্রতি পুরুষের প্রতর্ক চিরাচরিত কু-অভ্যাস। পান থেকে চুন কষলেই পুরুষ প্রত্যষ্ট হয়ে উঠে। অন্য দিকে নারী প্রতিমুহূর্তে নিষ্পেষিত লাঞ্চিত, এ সমাজের চোখে তা পড়ে না।

আপা ও আপা নাস্তা করবেন না। হেই কহন না আপনারে কইয়্যা গেলাম। আপনি দেহি অহনও আগের জায়গাতেই বইয়্যা আছেন। কি দেহেন এতক্ষণ আপা। খালি পানি আর পানি ছাড়া আর কিছুই ত দেহা যায় না।

অরোরা আতরীর দিকে ফিরে বলল, তোকে না বলেছি এখানে এসে এতো বকবক করবি না। যা বলার সংক্ষেপে বলে চলে যাবি।
আতরী বলল, আমি আবার অত কথা কই কইলাম। খালাম্মা পাঠাইছে দেইখাই ত আইলাম। নইলে আপনার এইহানে কেডা আইতে চায়। কেমন আন্ধারের মধ্যে সারা দিন বইয়্যা তাহেন। ভূতের ঘরের মতো কেমন ডর ডর লাগে। সে অরোরার দিকে আরেকটু ঝুঁকে বলল, আপা একটা কথা জিগাই। আপনারে কি জীন-ভূতে আছর করছে?

অরোরা ধমক দিয়ে বলল, আতরী তুই যাবি এখান থেকে ?
সে যেতে যেতে বলল, আমি ত খারাপ মানুষ, আপনার দুশমন, তয় একটা খুশির খবর দেই। আমার খালুজান মাইনে আপনার আব্বাজান হজ করার লাইগ্যা মক্কাশরীফ যাইতাছে। অরোরা তাড়াতাড়ি ডেকে বলল, আতরী শোনে যা, শোন আতরী।

সে ফিরে এসে দরজায় দাঁড়িয়ে বলল, আমি অইলাম খারাপ মানুষ, খালি আপনেরে বিরক্ত করি, যাইগ্যা। চলে গেল আতরী।
অরোরা হাসল, মেয়েটা ছোট হলেও মাথায় বেশ বুদ্ধি। তিন বছর পূর্বে বাবা ওকে রাস্তায় কাঁদতে দেখে নিয়ে আসেন। বাবা-মা কারো নাম ঠিকানা বলতে পারে না। প্রথম প্রথম বেশ কাঁদত, পরে অবশ্য ঠিক হয়ে গেছে। অরোরার সাথে তার বেশ ভাব। আতরী নামটা তার প্রকৃত নাম নয়। কুড়িয়ে পাওয়ার সময় ওর গায়ে সুন্দর আতরের গন্ধ ছিল বলে বাবা ওকে আতরী বলে ডাকেন। এখন এ নামের আড়ালে কুসুম নামটা তার হারিয়ে গেছে। আতরীকে স্কুলে ভর্তি করে দেওয়া হয়েছে। লেখা-পড়ার প্রতি প্রচন্ড ঝোঁক দেখে মা ব্যবস্থা করেছেন। সুযোগ পেলেই সে অরোরাকে একটু জ্বালিয়ে যায়।

আলমাছ আলী মুন্সি আজ হজব্রত পালন করতে সৌদি আরব যাচ্ছেন। অরোরার কাছে এর চেয়ে আনন্দের খবর আর কিছুই নেই। ডানা মেলে উড়ার স্বপ্ন তার অচিরেই সফল হতে যাচ্ছে। মুন্সি সাহেব যতোদিন সৌদি আরব আছেন ততোদিন সে স্বাধীন, পাখির মতো মুক্ত। চলার কোন বাঁধা নেই, ঘুরার কোন শেষ নেই। যে দিকে চোখ যায় শুধু ছুটে চলা। সে প্ল্যান তৈরি করতে বসলো কোথায় কোথায় যাওয়া যায়। দূরে কোথাও যেতে হলে একজন সঙ্গী দরকার। মাকে নিয়ে জার্নি করা যাবে না।

ড্রাইভারকে নিয়ে যাওয়ার প্রশ্নই উঠে না। লোকটার দৃষ্টি ভালো না। বোরকার উপর যেভাবে তাকায় একা পেলে আস্ত খেয়ে ফেলতে চাইবে। এ লোককে নিয়ে দূরে কোথাও যাওয়ার কোন মানে হয় না। হুঁ পেয়েছি, সেই ছেলেটি যাকে ছাদে দেখি। নিশ্চয়ই আমার সাথে যেতে আপত্তি করবে না। আর না গেলে জোর করে নিয়ে যাবো। কিন্তু এটা যদি সেই স্যারের মতোন হয়। আহা বেচারা অরোরার ঠোঁটে হাসি ফুটে উঠলো।

ঘটনাটা এরকম, দশম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় তার বাবা একজন গৃহশিক্ষক নিয়ে এলেন। হুজুর মানুষ ইংরেজী আর গণিতের ভালো শিক্ষক। অরোরা প্রতিদিন সকাল বিকাল তার কাছে পড়তো। বোরকা পড়েই স্যারের কাছে পড়তে যেতো সে। একদিন মৌলভী সাহেব বললেন, এভাবে হাত মুখ ডেকে রাখলে পড়াতে অসুবিধা হয়। তুমিও ঠিক মতো বুঝতে পারবে না। আমাকে লজ্জার কিছু নেই। আমি তোমার বাবার মতো। তারপর অরোরা নেকাব ও হাত মোজা খুলে রাখে। ক’দিন পর থেকেই সে খেয়াল করল হুজুর কারণে অকারণে তার শরীরে হাত-পা ছোঁয়ায়।

প্রথমে সে ব্যপারটা খুব আমলে আনেনি। প্রতিবাদ করার মতো কিছুই নয়। কিন্তু যতদিন যাচ্ছে ব্যপারটা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এখন আর কেবল শরীরে ছোঁয়া নয় প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে মাথায় পিঠে ও বাহুতে উনার হাতের আর্শিবাদ লাগতে থাকে। অরোরা মারাত্মক পরিস্থিতিতে পড়ে গেলো। স্যারের নজর কোন দিকে বুঝতে বাকি রইল না। তবু চুপ করে রইল সে। মাকে বললে তা যাবে বাবার কানে আর ব্যাপারটা তখন ভয়ঙ্কর রূপ নিবে। একদিন সকাল বেলা অরোরা পড়ছে। স্যার তাকে উপদেশ আর আর্শিবাদস্বরুপ সারা শরীরে হাত বুলাতে লাগলেন। সে তাড়াতাড়ি বই নিয়ে উঠে বলল, আমার মাথা ব্যাথা করছে আজ আর পড়বো না স্যার।
মহাশয় হাত ধরে বললেন- আরেকটু পড় না, গ্রামারটা বুঝিয়ে দেই।

সে কোনো কথা না বলে চলে গেলো। রুমে গিয়ে প্রতিজ্ঞা করলো, না আর নয়। ওকে এখনই শায়েস্তা না করলে কোন দিন পাগলা কুকুরের মতো কামড়ে দেয় তা বলা যায় না। আজ বিকালে এর একটা বিহিত করতেই হবে। তারপর প্ল্যান সাজালো কিভাবে কি করবে। তার একটি বিশেষ ক্ষমতা আছে। তা প্রয়োগ করতে হলে যার উপর প্রয়োগ করবে তাকে ভয় পাওয়াতে হয়। ভয় পেলে মানুষের স্নায়ু দূর্বল হয়ে পড়ে, মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা লোপ পায় আর তখনই মজাটা হয়। কিভাবে খুব ভয় পাওয়াতে হবে সে পরিকল্পনা করলো। বিকাল বেলায় খুব সেজেগুজে হাসিখুশিতে স্যারের কাছে গেলো পড়তে।

মৌলভি সাহেবকে সালাম জানিয়ে সে বোরকা খুলে ফেললো। তিনি খুব অবাক হলেন। পাখি পোষ মেনেছে ভেবে খুশিতে গদ গদ। অরোরা পড়তে লাগলো। মাষ্টার মশাই পাশে বসলে সে ইচ্ছে করে কিছুটা এগিয়ে দিলো শরীর। তখন ইনটেলেকচুয়াল হার্মাত সাহেবের আনন্দ দেখে কে! তিনি একহাতে অরোরাকে জড়িয়ে ধরলেন। খুব আবেগপ্রবণ হওয়ার জন্য সময় ও সুযোগ দিলো অরোরা। কারণ এতে তার মস্তিষ্ক এককেন্দ্রীভূত হয়ে যাবে। আর তাতে হঠাৎ বাঁধা পড়লেই ঘটবে বিপত্তি। অরোরা বুঝতে পারল মাষ্টার মশাই নিজের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছেন। হঠাৎ সে উচু কণ্ঠে বলল- স্যার আব্বু এসেছে। আলমাছ মুন্সিকে মাষ্টার মহাশয় আজরাইলের ন্যায় ভয় পেতেন।

তার কথা শুনেই তিনি লাফ দিয়ে উঠলেন, ভয়ে রক্তশুন্য হয়ে গেলো মুখ। হোঁচট খেয়ে তাল সামলানোর জন্য সামনে ঝুঁকে অরোরার দিকে তাকালেই ঘটল মজার ঘটনাটা। অরোরা তৈরি হয়েই ছিল। তার চোখে চোখ পড়তেই চুম্বকের মতো সেখানে তা আটকে গেলো। নিজের অজান্তেই নুয়ে থাকা অবস্থায় তিনি উপরের দিকে উঠতে লাগলেন। বেশ কিছুক্ষণ শুন্যে ঝুঁলে থাকার পর অরোরা চোখ সরিয়ে নিতেই তিনি দপ করে মাটিতে পড়ে গেলেন। অসহায় শিশুর ন্যায় ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে রইলেন অরোরার দিকে।

যেন কিছুই হয়নি, সে বোরকা পরে ধীরে ধীরে বেরিয়ে গেল ঘর থেকে। পরদিন সকালে মাষ্টার সাহেবকে আর কোথাও খুঁজে পাওয়া গেল না। তার কাপড়-চোপরও নেই। আলমাছ সাহেব কিছুক্ষণ খোঁজাখুজির পর বাহির থেকে ডেকে অরোরাকে জিগ্যেস করলেন, সে কিছু জানে কিনা, অথবা কোথাও যাওয়ার কথা তাকে বলে গিয়েছে কিনা। অরোরা খুব শান্তভাবে জবাব দিলো, গতকাল বিকালে পড়ানোর সময় স্যার এমন কিছু বলেননি।

যদি ছেলেটি সেরকম হয় তবে এভাবে শায়েস্তা করে দিলেই সব ঠিক হয়ে যাবে। আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা, সময়টা পার হয়ে গেলেই সে স্বাধীন।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 382
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪