fbpx

|

ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীর সাথে রাবির প্রতারণা

প্রকাশিতঃ ১:৫৪ পূর্বাহ্ন | জানুয়ারী ২৬, ২০১৮

অনলাইন বার্তাঃ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্নান) ভর্তি কার্যক্রমে ভর্তি জন্য এক শিক্ষার্থীকে ভুল তারিখে ডেকে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে দেয়া নোটিশ অনুযায়ী ভর্তির শেষ তারিখ ২৪ জানুয়ারি হলেও শিক্ষার্থীকে ২৫ তারিখের কথা সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের টেলিফোন থেকে কল করে জানানো হয়। এতে ভর্তি হতে পারেনি সেই শিক্ষার্থী।

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থীর নাম সজীব চন্দ্র বর্মণ। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগে ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর দাবি, ‘আমাকে ২৫ তারিখে ভর্তি হতে আসতে বলা হয়েছিল। ২৫ তারিখে ভর্তি হতে আসলে আমাকে ভর্তি করানো হয়নি। অন্য কোনো পছন্দের প্রার্থীকে সুযোগ দিতেই আমাকে ভুল তারিখ বলে হয়েছে। আমাকে যদি ভুল তারিখ না বলা হতো, তবে বিশ্ববিদ্যালয় ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তারিখ অনুযায়ি আমি ভর্তি হতে আসতাম।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে দেখা যায়, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির জন্য সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অপেক্ষমান ৬ষ্ঠ মেধা তালিকা গত ২৩ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয় ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। সেখানেই সজীবের নাম রয়েছে। নোটিশ মোতাবেক তার ভর্তি শেষ সময় ছিল ২৪ জানুয়ারি বিকেল ৪টা। ২৩ তারিখে ৬ষ্ঠ মেধা তালিকা প্রকাশের একদিন পরেই (২৪ জানুয়ারি) ৭ম মেধা তালিকা প্রকাশ করা হয়। সেখানে নওরিন রহমান নিশি নামের এক শিক্ষার্থীকে ২৫ তারিখে ভর্তি হওয়ার জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৬ষ্ঠ মেধা তালিকা প্রকাশের দিন সকাল ১১ টার দিকে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধিকর্তার টেলিফোন ৭১১১৩০ নম্বর থেকে উপ-রেজিস্ট্রার মোফাজ্জল হোসেন ৬ষ্ঠ মেধা তালিতায় নির্বাচিত শিক্ষার্থী সজীব চন্দ্রকে কল করেন।

তাদের মধ্যে কথোপকথনের অডিও রেকর্ডটিতে শোনা যায়, সজীবকে ফোন দিয়ে ভর্তির বিষয়ে কথা বলতে চান উপ-রেজিস্ট্রার মোফাজ্জল হোসেন। সজীবকে জানানো হয়- ফোকলোর বিভাগে সে ভর্তি হবে কি না? এরপর সজীব জিজ্ঞেস করে, ফোকলোর বিভাগ ছাড়া কী অন্য কোন বিভাগে ভর্তি হওয়া যাবে কি না। এরপর সজীব জানতে চেয়েছেন ভর্তির শেষ সময় কবে। এর উত্তরে তিনি বলেন ২৫ তারিখ ভর্তির শেষ সময়। এরপর সজীবের বাড়ি কোথায় তা জানতে চান মোফাজ্জল হোসেন। উত্তরে সজীব তার বাড়ি পঞ্চগড়ে জানালে তিনি আবার প্রশ্ন করেন, সে অন্য কোথাও ভর্তি হয়ে আছে কি না।

সজীব জানায়, সে দিনাজপুরে ভর্তি হয়েছিল। এরপর রাবির ‘ই’ (সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ) ইউনিটে ভাইভা দেয়ার জন্য সেখানে ভর্তি বাতিল করে কাগজপত্র নিয়ে আসে। এরপর তিনি সজীবের পুরো নাম উচ্চারণ করে আবার বলেন তুমি কি ভর্তি হবা? আমি কি কনফার্ম করবো? ডীনকে জানাবো? এরপর সজীব ভর্তি ফি এর ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি ভর্তি ফি এর বিষয়ে জানান। এরপর তিনি বলেন, একটু পরে আমি ডীনকে জানিয়ে কনফার্ম করে তোমাকে আবার ফোন করবো। তুমি মোবাইল ধরবা, মোবাইল কাছে রাখবা।

তবে সজীব এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাকে আর কোনো টেলিফোন করা হয়নি।

এবিষয়ে মোফাজ্জল হোসেনের কাছে জানতে চাওয়া হয়, ভর্তির তারিখ ২৪ তারিখ হলে সজীবকে কেন ২৫ তারিখের ভর্তি হতে আসতে বলা হল?’ উত্তরে তিনি বলেন, ‘২৫ তারিখ কেন বলা হয়েছিল এই মুহূর্তে তো আমার মাথায় সেটা সেট করা নেই।’

তবে মোফাজ্জলকে সজীবের সঙ্গে কথপোকথনের রেকর্ড শোনানো হলে তিনি তা বিষয়টি স্বীকার করেন। তিনি বলেন, ‘হ্যা, এখানে (রেকর্ডিংয়ে) আমার কণ্ঠ ঠিকই আছে। সে ওয়েবসাইটে দেখে নাই, তার দায়িত্ব পালন করে নাই, এখন এ ব্যাপারে কিছু বলার থাকলে ডীনকে বলেন। ডীন যা বলার তা বলবেন।’

তিনি আবার বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির শেষ সময় ২৫ তারিখ। সেটা সামনে রেখে আমি ২৩ তারিখ তাকে ফোন করে বলেছি পরের দিন ২৪ ও ২৫ তারিখ সময় আছে। হয়ত সেখান থেকে আমি বলেছি।’

ডীনকে জানিয়ে পরবর্তীতে আবার ফোন করার কথা থাকলেও কেন করেননি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি অস্বীকার করছি না। আমি বলেছি। কিন্তু যেহেতু সে কনফার্ম করেছে, আমি ওয়েবসাইটে দিয়ে দিয়েছি। এখানে যা আছে সেখানে আমার মানবিক ভুল আছে। তবে আমি শতভাগ কনফিডেন্ট আমার মধ্যে কোন দুর্বলতা নেই।’

তবে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি প্রক্রিয়াতে ৩য় অপেক্ষামান তালিকা প্রকাশের পর থেকেই ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগ করা হয়। শুন্য আসন অনুযায়ী অপেক্ষা তালিকায় থাকা শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা ভর্তি হতে ইচ্ছুক তাদেরকেই পরবর্তীতে প্রকাশিত মেধা তালিকায় তাদেরকে রাখা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত একটি তালিকাও অনুষদ দফতরে রয়েছে। যা এই প্রতিবেদকের কাছে রয়েছে। এই তালিকা ঘেঁটে দেখা যায়, যাদেরকে ফোন করা হয়েছিল তাদের মধ্যে অনেকেই ফোন রিসিভ করেনি।  তবে যারা ফোন রিসিভ করেনি তাদেরকে ছাড়াই মেধা তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে বলে অনুষদ দফতর থেকে জানানো হয়েছে।

সামাজিক অনুষদের ডীন অধ্যাপক ফয়জার রহমান দাবি করে বলেন, ‘আমরা অত্যন্ত স্বচ্ছতার সঙ্গে দায়িত্ব নিয়ে ভর্তির কাজগুলো করেছি। সেই ছেলেটির সঙ্গে যা ঘটেছে সেটি কোন অনিয়ম করার জন্য বা কাউকে ডিপ্রাইভ করার জন্য করা হয়েছে বলে আমার মনে হয় না।’

তবে ভর্তি এই প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক অধ্যাপক। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা বলেন, টেলিফোন করে অপেক্ষমান তালিকা প্রকাশ করা নিয়ে সন্দেহ থাকাটা স্বাভাবিক। তারা কাকে ফোন করলো আর কাকে না করলো এটা তো সকলের জানার কথা নয়। আর ভর্তি কার্যক্রম পুরোটাই অনলাইনে হবে। টেলিফোন করার বিষয়টিতে অন্য কোনো উদ্দেশ্য থাকা অস্বাভাবিক নয়।’

উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, ‘আমি বিষয়টি শুনেছি। যে শিক্ষার্থীর সঙ্গে এমনটি হয়েছে, সে যদি বিষয়টি উল্লেখ করে ডীনের কাছে আবেদন করে, তবে তার ভর্তির বিষয়ে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

সুত্র বাংলাদেশ প্রতিদিন

দেখা হয়েছে: 409
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!