fbpx

|

ফসলের সাথে মধু চাষে লাভবান গোদাগাড়ীর সুমন

প্রকাশিতঃ ১১:৪৮ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ২১, ২০১৭

শামসুজ্জোহা বাবু, গোদাগাড়ী প্রতিনিধিঃ

রাজশাহী গোদাগাড়ীতে সরিষা ক্ষেতে অল্প খরচে মধু সংগ্রহ করে লাভবান শহিদুল ইসলাম সুমন। সরিষার জমিতে কৃষকের এক দিকে মধু বিক্রি করে অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অন্য দিকে ক্ষেতে মধু চাষ করে সরিষার ফলন বেশী হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

 

কৃষি বিভাগের পরামর্শ ও সহযোগীতায় চলতি বছরে উপজেলার বাসুদেবপুর ইউনিয়নে হাতনাবাদ এলাকায় মৃত আশরাফুল ইসলাম ও মাবিয়া বেগমের বড় ছেলে শহিদুল ইসলাম সুমন নিজ চেষ্টায় মধু চাষ করে লাভবান হয়েছেন। তিনি আশা করেন কোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হলে সরিষার বাম্পার ফলনের পাশাপাশি আগামী মাসে কয়েক টন মধু সংগ্রহ করতে পারবে। সরিষা ক্ষেতে মধু চাষে উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান স্থানীয় কৃষি বিভাগ।

 

মধু চাষী সুমন বলেন, আমি তেমন পড়া লেখা জানি না বা কোন প্রশিক্ষণ গ্রহণ করিনি। গত ২০০০ সালে কয়েক বছর যাবৎ রাজশাহী, নাটোর ও চাঁপাই নবাবগঞ্জ থেকে লোক এসে হাতনাবাদ এলাকায় মধু চাষ করে অনেক অর্থ উপার্জন করে নিয়ে যায়। তখন আমি চিন্তা করি একই ভাবে যদি আমি মধু চাষ করতে পারি তবে গোদাগাড়ীর জমি ব্যবহার করে যে, অর্থ উপার্জন করবো তা গোদাগাড়ী রয়ে যাবে।

 

রাজশাহীর বেঙ্গল হানি নামে একটি প্রতিষ্ঠান এখানে বেশ কয়েক বছর মধু চাষ করে। প্রতিষ্ঠানের পরিচালক জার্জিস আলীর কাছে আমি সরিষার জমিতে মৌমাছির মাধ্যমে মধু সংগ্রহ করা শিখতে চাই। তিনি আমাকে ছয় মাস তার সাথে রেখে প্রশিক্ষণ দেন। এরপর ২০১২ সালে আমার বাবা মারা গেলে পরিবারের বড় সন্তান হিসেবে আমার উপর সংসারের ভার পড়ে যায়। বাবার পৈত্রিক সম্পত্তি হিসেবে ভিটা-বাড়ী ও ৩ থেকে ৪ বিঘা জমি পায়। সে জমিতে চাষাবাদ ও কাঠ মিস্ত্রির কাজ করে ২ ভাই ও ১ বোনের পড়া শোনার খরচ ও সংসারের খরচ চালানো কষ্টকর হয়ে পড়ে।

 

এই সময় “আশা” এনজিও থেকে ১০ হাজার টাকা ঋণ উত্তোলন করে ইতালিয়ান এপিল মোল ফ্লেরা নামে মৌমাছি চাষের জন্য ৩৫ টি বক্স তৈরি করে রাজশাহী বিসিক এর ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট থেকে মৌমাছি ও চাক সংগ্রহ করি। ৪ বছর যাবৎ আমি এই মধু চাষ করছি। প্রথমে ৯ ফ্রেম সহ মৌমাছি কিনে ৩টি বক্সে রাখি। প্রতিটি ফ্রেম সহ মৌমাছির মূল্য ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা এবং প্রতিটি কাঠের বাক্স তৈরিতে ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা খরচ হয়। ৯ ফ্রেম মৌমাছি থেকে ১৫ ফ্রেমে রূপান্তরিত করার জন্য রানী মৌমাছির মাধ্যমে বাচ্চা ফুটাতে হয়। পরে ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাচ্ছে । বর্ষাকালে মৌমাছি নষ্ট হয়।

 

প্রতিটি ফ্রেমের মৌমাছির সংরক্ষণের জন্য খরচ হয় ১৫ হাজার টাকা। শুধু শীতকালে মধু সংগ্রহের পর সারা বছর লালন পালন করতে হয়। মধু সংগ্রহের পর মৌমাছি গুলোকে চিনি ও প্রয়োজনীয় ঔষুধ খাওয়াতে হয়। সব খরচ বাদ দিয়ে বছরে প্রতি বক্সে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা লাভ হয়। সুমুন আরো বলেন, প্রতি বছরে স্থানীয় সরিষার জমিতে শীতকালীন সময় নভেম্বর থেকে জানুয়ারী মাস পর্যন্ত মধু সংগ্রহ করা যায়।এরপর ফেব্রুয়ারী ও মার্চ মাসে লিচু বাগানে মধু সংগ্রহ করা যায়। বাকী সময় মৌমাছি গুলো বাড়ীতে রক্ষনাবেক্ষণ করতে হয়। একটি বক্সে প্রায় ১০-১২ কেজি মধু উৎপাদন হয়। বক্স গুলো সরিষা জমির ধারে রেখে ২ দিন পর পর খুলে পরিচর্যা করতে হয় এবং ১০ দিন পর পর মধু সংগ্রহ করা যায়। প্রতি কেজি মধুর মূল্য ৩৫০ টাকা।

 

তবে বাণিজ্যিক ভাবে অন্য জেলাতে মধু পাঠাতে পারলে আরও লাভবান হওয়া যাবে। বর্তমানে মধু চাষ করে আমি সচ্ছল। আমার পরিবারের সবাই এখন সুখি জীবন যাপন করে। আমাকে দেখে উপজেলার অনেক যুবক আমার পদ্ধতি ব্যবহার করে মধু চাষ করতে আগ্রহী। আমার ছোট ভাই-বোনেরা এখন পড়া শুনা করে। আমি খুব আশাবাদি যদি কোন প্রশিক্ষণ, কারিগরি সহায়তা এবং সরকারী বা বেসরকারী সহায়তা পাই তাহলে মধু উৎপাদন বাড়াতে পারবো। হাতনাবাদ মৌজায় ২০০-৩০০ বিঘা জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে। এখানে বক্স বা মৌমাছি বৃদ্ধি করতে পারলে মধু উৎপাদন বৃদ্ধি করে আর্থিক লাভবান হওয়া যাবে।

 

উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা ও কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মরিয়ম আহমেদ জানান, সরিষা ক্ষেতে মৌমাছি থাকলে স্বাভাবিক এর চেয়ে ৩০-৩৫ শতাংশ সরিষা ফলন বাড়ে কারণ সরিষা ফুলে মৌমাছি যেয়ে পরাগায়ণ ঘটায় এতে করে সরিষার দানা ভালো হয় এবং ফলন বৃদ্ধি পায়। যে সরিষার ক্ষেতে মৌমাছি থাকে না, সেখানে সরিষার ফলন কম হয়। সরিষার ক্ষেতে মধুর খামার গড়ে তোলার জন্য সকল কৃষককে উৎসাহ দিয়ে থাকি। এর ফলে কৃষক দু দিক থেকে লাভবান হয়। ক্ষেতে সরিষার চাষ ও মধু উৎপাদন করে অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হতে পারবে। এই উপজেলায় এই প্রথম কোন ব্যক্তি মধু খামার গড়ে তুলেছে। এই কর্মকর্তা আরও বলেন, এর আগে মধু চাষের প্রচলন এই এলাকায় ছিল না। অন্য জেলা থেকে এসে মধু সংগ্রহ করে নিয়ে যেত। তবে কয়েক বছর ধরে হাতনাবাদের সুমন নিজ উদ্দ্যোগে মধু চাষ করে লাভবান হয়েছে।

 

পুরো উপজেলায় মধু চাষে ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে দিতে হলে সরকারী ভাবে কৃষকের মাঝে সচেতনা বৃদ্ধি, পুঁজির যোগান, আধুনিক যন্ত্রপাতি এবং মধু বিক্রয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। মূলত পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সরিষা ক্ষেতে মধুর খামার করতে পারছে না কৃষকেরা। এই উপজেলায় গত বছর ৫৭৫০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের সরিষা চাষ হয়েছিল তা এ বছরে বৃদ্ধি পেয়ে ৬১৪০ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষ হয়েছে।

 

সঠিক সিদ্ধান্ত নিলে মধুর খামার আরও অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে। সঠিক পরিচর্যা করলে একটি ইতালিয়ান এপিল মোল ফ্লেরা বা দেশি ভাষায় হুল বিহীন মৌমাছি বছরে ৩০০-৪০০ গ্রাম মধু উৎপাদন করবে।

দেখা হয়েছে: 553
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!