fbpx

|

তানোরে প্রতিবাদ কর্মসূচি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

প্রকাশিতঃ ৮:৪১ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ২০, ২০১৮

আলিফ হোসেন, তানোরঃ 
রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) সংসদীয় আসনের সাংসদ ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে মাদকের পৃষ্ঠপোষক দাবি করে দেয়া প্রতিবেদন প্রণয়নের প্রতিবাদে তানোরে বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে এই প্রতিবেদন নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য ও সাধারণের মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। এমপি অনুসারিদের দাবি জন ও কর্মী বান্ধব নেতাকে বির্তকিত করতে একটি মহল উদেশ্যেপ্রণোদিত হয়ে এমন মনগড়া প্রতিবেদন দিয়েছে, অন্যদিকে এমপি বিরোধী বলে পরিচিত আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীরা প্রতিবেদন যথাযথ দাবি করে বলছে এমন অভিযোগ উঠায় আগামিতে তার মনোনয়ন নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়ায় এসব কথিত প্রতিবাদের মাধ্যমে জনমানুষের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রভাবিত করার চেস্টা করা হচ্ছে।

ওদিকে সাধারণের মধ্যে এই প্রতিবেদন নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। রাস্ট্রের একটি দায়িত্বশীল সংস্থা প্রতিবেদন দিয়েছে, আর গণমাধ্যম সেটি মাত্র তুলে ধরেছে তাহলে দোষ কার ? রাস্ট্রিয় সংস্থার না গণমাধ্যমের ? এসব প্রশ্ন এখন নির্বাচনী এলাকার সাধারণ মানুষের মূখে মূখে প্রচার হচ্ছে।

স্থানীয় রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের অভিমত, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের এসব প্রতিবাদ কাদের বিরুদ্ধে ? দায়িত্বশীল গণমাধ্যম না ? রাস্ট্রের একটি সংস্থার বিরুদ্ধে। তারা বলছে, দেশের অন্যতম জনপ্রিয় একটি পত্রিকার প্রধান শিরোনামে প্রকাশিত খবর যদি মিথ্যা হয় তাহলে সাধারণ মানুষের আস্থার জায়গাটি কোথায় ?। এখানো দেশের সাধারণ মানুষ মনে করেন তাদের আস্থার জায়গা গণমাধ্যম। যে কারণে এখানো মানুষ যখন কোথাও কোনো সুবিচার থেকে বঞ্চিত হয় তখন গণমাধ্যম কর্মীদের মাধ্যমে (সংবাদ সম্মেলন) বিষয়টি দেশ বাসির সামনে তুলে ধরেন। আবার যদি রাস্ট্রের অইন প্রণতার বিরুদ্ধে রাস্ট্রিয় সংস্থার দেয়া প্রতিবেদন মিথ্যা হয় তাহলে সেটা আরো ভয়ঙ্কর। কারণ রাস্ট্রের দায়িত্বশীল একটি সংস্থা যদি রাস্ট্রের আইন প্রণেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রতিবেদন দেয় তাহলে রাস্ট্র কিভাবে তাদের ওপর ভরসা রাখবেন।

আবার কেউ বলছে, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদের বিরুদ্ধে কথা বললে সেটা যদি প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে দলের সভাপতি বা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিপক্ষে যায়। তাহলে সাংসদের বিরুদ্ধে দেয়া প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে যারা প্রতিবাদ করছে তাদের প্রতিবাদ তো প্রত্যক্ষ বা প্ররোক্ষভাবে রাস্ট্রের একটি দায়িত্বশীল সংস্থার বিরুদ্ধেই যাচ্ছে তাই নয় কি ?। আবার যদি প্রতিবাদ গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে হয় তাহলে তো আওয়ামী লীগের গণমাধ্যম বান্ধব সরকার বলে যেই পরিচিতি রয়েছে সেটার বিরুদ্ধে যাচ্ছে না কি ?। রাস্ট্রের দায়িত্বশীল ওই সংস্থার কাজ হলো এমপি,মন্ত্রী, আমলা বা ব্যবসায়ীসহ সব বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য সরকারের কাছে তুলে ধরা। এসব কাজ করতে গিয়ে তাদের প্রতিবেদন একজন সাংসদের বিরুদ্ধে যাওয়ায় যদি এভাবে রাজপথে প্রতিবাদ অব্যাহত থাকে তাহলে তো স্বাধীনভাবে তাদের কাজ করাই কঠিন হয়ে পড়বে। এর পরে সংস্থাটি কি ? আর চাপমুক্ত কাজ করতে পারবে এমন প্রশ্নও সাধারণের মনে ঘরিপাক খাচ্ছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সুধী জনদের অভিমত, এমপি ওমর ফারুক চৌধূরী স্বরাস্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য রয়েছেন, তাহলে তারই অধিনস্ত সংস্থার কর্মকর্তাগণ কি ? ভাবে তার বিরুদ্ধে এমন মনগড়া প্রতিবেদন দিতে পারে না কি ? আড়ালে রয়েছে অন্যকিছু ?। কেউ বলছে, আসলে এসব প্রতিবাদের মাধ্যমে আসল ঘটনা আড়াল ও সাধারণ মানুষকে বোঝানোর চেস্টা করা হচ্ছে প্রতিবেদন মিথ্যা ও বানোয়াট। আবার অনেকে বলছে, রাস্ট্রের একটি দায়িত্বশীল সংস্থা কখনই সুনিদ্রিষ্ট তথ্য-উপাত্ত ব্যতিত একজন আইন প্রণেতার বিরুদ্ধে এমন প্রতিবেদন দিতে পারেন না।

আবার যদি প্রতিবেদন মিথ্যা হয়ে থাকে তাহলে সকল গণমাধ্যম কর্মীদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এমপি মহোদয় যদি তার অবস্থান ব্যাখা করতেন তাহলে তার রাজনৈতিক দূরদর্শীতার পাশপাশি বিষয়টি সাধারণ মানুষের কাছে আরো বেশি গ্রহণযোগ্য হতে পারতো। অথচ তা না করে এভাবে রাজপথে প্রতিবাদ করার মানে রাস্ট্রিয় সংস্থার বিপক্ষে অবস্থান নেয়ার শামিল। তাহলে তো প্রতিনিয়ত রাস্ট্র প্রধান থেকে শুরু করে এমপি-মন্ত্রী ও বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ নানা কারণে গণমাধ্যমের শিরোনাম হচ্ছে, তবে তারাও কি ? এভাবে রাজপথে নেমে প্রতিবাদ করছে। যদি এমপি-মন্ত্রী বা প্রভাবশালী মহলের বিরুদ্ধে কোনো খবর প্রকাশ করা হলেই রাজপথে প্রতিবাদের ঝড় তোলা হয় তাহলে তো গণমাধ্যম স্বাধীন ভাবে কাজ করার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর যদি মিথ্যা হয় তাহলে তো তার বিরুদ্ধে আদালতের আশ্রয় নেয়া যেতেই পারে আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়। আর আদালতে গেলেই বিষয়টি পরিস্কার হবে আসল ঘটনা কি ? তাহলে রাজপথে কোনো এই প্রতিবাদ। কেউ কেউ আবার বলছে, কিছু দলীয় নেতাকর্মী নিয়ে এসব প্রতিবাদ করলেই কি প্রতিবেদন মিথ্যা হয়ে যাবে না কি ? বরং গণমাধ্যম ও গণমাধ্যম কর্মীদের প্রতিপক্ষ না করে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এমপি মহোদয় তার অবস্থান ব্যাখা করলে সেটি বেশী গ্রহণযোগ্য হবে।

এব্যাপারে একাধিক যোগাযোগের চেস্টা করা হলেও আওয়ামী লীগ বা সহযোগী সংগঠনের দায়িত্বশীল কারো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

দেখা হয়েছে: 474
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!