fbpx

|

মধুর ন্যায্যমূল্য না পেয়ে মৌচাষীরা হতাশ

প্রকাশিতঃ ৯:২১ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ২৪, ২০১৮

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■
নড়াইলে চলতি বছর সরকারিভাবে ২ টন মধু বিপরীতে ২০০ টনের বাজারের অভাব মৌচাষীরা উৎপাদিত মধুর ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এর বিপরীতে ২০০ টনের বেশি মধু উৎপাদন হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। বেশি উৎপাদনের কারণে বাজারের অভাবে দাম নিয়ে চিন্তিত মৌচাষীরা।

জানা গেছে, সদর উপজেলার আউড়িয়া ইউনিয়নের চিলগাছা রঘুনাথপুর গ্রামের মো. বাবুল শেখ ২০০১ সালের নড়াইলে প্রথম মৌ-চাষ শুরু করেন। তার সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে আরো অনেকেই মৌ-চাষে এগিয়ে আসেন। বর্তমানে রঘুনাথপুর গ্রামেই মৌচাষীর সংখ্যা প্রায় অর্ধশত। শুধু এ গ্রামেই বছরে ১০০ টনের বেশি মধু উৎপাদন হয়। ছোট-বড় মিলিয়ে জেলায় মৌ-খামারির সংখ্যা ৮৬ জন।

নড়াইল জেলা মৌচাষী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক জানান, নভেম্বর থেকে মে পর্যন্ত মধু আহরণের মৌসুম। এ সময় বাক্স নিয়ে খামারিদের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বেড়াতে হয়। যেখানেই দিগন্ত বিস্তৃত সরিষা, মসুর, তিল, তিসিসহ বিভিন্ন ফুল দেখা যায়, সেখানেই বাক্স স্থাপন করা হয়। এভাবে সর্বশেষ মে মাসে সুন্দরবন থেকে গেওয়া, গরান, বাইন, কেওড়া ফুলের মধু আহরণের মধ্য দিয়ে মৌসুম শেষ হয়। প্রতিজন চাষী এক মৌসুমে সরিষা গড়ে প্রায় তিন টন মধু সংগ্রহ করেন। চলতি বছর শুধু সরিষা ক্ষেত থেকে জেলায় ২০০ টনের বেশি মধু সংগ্রহ হবে।

এছাড়া অন্য ফুলের ৬০ টন পর্যন্ত মধু পাওয়া যাবে। রঘুনাথপুর এলাকার মৌচাষী আনিচুর মিজান জানান, আবহাওয়ায় অনুকূল থাকলে ভরা মৌসুমে প্রতিটি বড় মৌ-বাক্স থেকে ছয়-সাতদিন অন্তর ৩৫ থেকে ৪০ কেজি পর্যন্ত মধু পাওয়া যায়। এছাড়া ছোট বাক্সে ১৮ থেকে ২০ কেজি মধু সংগ্রহ করা যায়। পাইকারিতে প্রতি টন মধুর দাম ১ লাখ টাকা। এ হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে ১০০ টাকা। অথচ খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি মধু বিক্রি হয় ২০০ থেকে ২৭৫ টাকায়।

মৌচাষীরা জানান, বর্ষাকালীন মৌ-খামার পরিচর্যার জন্য নড়াইল উপযুক্ত স্থান। এ সময় প্রকৃতিতে বিশেষ কোনো ফুল না থাকলেও জেলায় নারকেল-সুপারি গাছের প্রাচুর্যের কারণে মৌমাছির জীবনধারণ ও বংশ বিস্তারে কোনো সমস্যা হয় না। তাই বর্ষাকালেও পাশের বিভিন্ন জেলা থেকে মৌচাষীরা নড়াইলে চলে আসেন। জুন থেকে অক্টোবর পর্যন্ত পাঁচ মাস মৌমাছিদের খাদ্য হিসেবে চিনিমিশ্রিত পানি সরবরাহ করা হয়। তারা জানান, মৌ চাষের প্রধান সমস্যা মধু বিক্রি। উদ্যোগের অভাবে দেশ-বিদেশে মধুর বাজার সম্প্রসারণ না হওয়ায় উৎপাদিত মধু বিক্রি করতে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। উপরন্তু ভারত থেকে মধু আমদানি করা হয়। এ কারণে অনেক সময় দেশে উৎপাদিত মধুর দাম পাওয়া যায় না, এমনকি অবিক্রীত থেকে যায়।

এ ব্যাপারে নড়াইল জেলা বিসিক কর্মকর্তা অপরাধ বার্তাকে বলেন, নড়াইলে নিজস্ব উদ্যোগে অনেকে মৌচাষ শুরু এবং ক্ষেত্র তৈরি করেছেন। এরই মধ্যে বিসিক এ মৌচাষীদের একীভূত করে আধুনিক প্রযুক্তিতে মৌ-চাষ প্রকল্পের আওতায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে। জেলায় মৌ-চাষে ৬ লাখ টাকা ঋণ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ২ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। মৌ-বাক্সসহ আধুনিক যন্ত্রপাতি সরবরাহ করে নতুন নতুন মৌচাষী তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

তিনি আরো জানান, গত বছর জেলায় মৌচাষীরা প্রায় ২৫০ টন মধু সংগ্রহ করেন। চলতি বছর মধু উৎপাদনের লক্ষ্য ধরা হয়েছে মাত্র দুই টন। আশা করছি এবার ২০০ টনের বেশি মধু উৎপাদন হবে। লক্ষ্যের সঙ্গে সম্ভাব্য উৎপাদনের পার্থক্য সম্পর্কে, মধু উৎপাদন কেন্দ্রীয়ভাবে নির্ধারণ করা হয়। মধু বাজারজাতে বিসিকের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা বিভিন্ন দেশের সঙ্গে আলোচনা করছেন। আশা করি মৌচাষীরা তাদের উৎপাদিত মধুর ন্যায্যমূল্য পাবেন।

দেখা হয়েছে: 379
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!