fbpx

|

কুমিল্লায়  সিভিল সার্জন অফিসের নাম ভাঙ্গিয়ে চলছে ভুয়া হাসপাতাল ও ভুয়া ডাক্তার

প্রকাশিতঃ ৮:২০ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ২১, ২০১৮

মাহফুজ আহম্মেদ,কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধিঃ

৩মাস কোর্স করে তিনি এখন মস্ত বড় ডাক্তার। নিয়মিত ভিজিট নিয়ে রোগীও দেখেন। শুধু তাই নয় গ্রামের সহজ সরল মানুষকে ধোকা দিয়ে কুমিল্লা শহরের বিভিন্ন বড় হাসপাতালে রোগীর দালালী করে সামন্য ফার্মেসি থেকে গত ৩/৪ বছরে হয়েছেন ১টি ভুয়া হাসপাতাল ও ১টি অনুমোদনহীন ডাগনষ্টিক সেন্টার ও একটি ভুয়া প্যাথলজি সহ ফার্মেসীর মালিক!

এখানেই শেষ নয়, ডাক্তারি করারমত নূন্যতম সার্টিফিকেট বা যোগ্যতা না থাকলেও কুমিল্লা সদর উপজেলার কালির বাজারস্থ নিজস্ব হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চেম্বার খুলে এমবিবিএস এফসিপিএস অথবা বিশেষজ্ঞ রেজিষ্টার্ড চিকিৎসক এর ব্যবস্থাপত্র পাল্টে দিচ্ছেন তিনি। তাও আবার দুজন সাংবাদিক এর সামনেই! আশ্চর্য না হয়ে উপায় আছে?

অবশ্য এসব তিনি এমনি তো আর করছেন না, কারন ও আছে, তার রয়েছে স্থানীয় নেতাদের সাথে ভাব ভালোবাসা ও ওঠাবসা আবার সরকারীদলের নেতাও পরিচয় দেন নিজেকে। তাছারা এমন কথা অনেকর সাথে তিনি নিজেই নাকি বলে বেড়ান কুমিল্লা সিভিল সার্জন অফিস সহ সরকারী উচু দপ্তরে তার লোক রয়েছে আর নিয়মিত মাসোয়ারা দিয়েই তিনি ব্যবসা করছেন তিনি। কালির বাজারের স্থানীয় আশেপাশের কয়েকজন ফার্মেসি মালিকের সাথে কথা বলে জানা গেছে ডাক্তারির তো নয়ই এমনকি পল্লি-চিকিৎসক হিসেব তার কোন সনদ রয়েছে বলেও তাদের জানা নেই।

তবে ৩-৬ মাসের একটি কোর্স করেছেন আইসিডিডিআরবি থেকে ডাইরিয়ার ওপর । আর এই যোগ্যতার বলেই সামান্য ফার্মেসি ব্যবসায়ী লিটন দেবনাথ কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়াই রাতারাতি খুলে বসেছেন ২২ শয্যা বিশিষ্ট একটি ডাইরিয়া হাসপাতাল। পাশাপাশি ১৫ শয্যা বিশিষ্ট অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যথারীতি চেম্বার খুলে জেনারেল ফিজিসিয়ান লেখা সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে ভিজিট নিয়ে দিচ্ছেন সব রোগীর প্রেসক্রিপশন ও চিকিৎসাও।

খোজ নিয়ে জানা যায় কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার ১নং কালির বাজার ইউনিয়নস্থ এলাকার বাজারের সিএনজি ষ্টান্ড এর পাশে গত৩/৪ বছর আগ পর্যন্ত হাতুরে চিকিৎসক লিটন দেবনাথ একটি ছোট ফার্মেসি চালাতো। ঔষধ বেচাকেনার পাশাপাশি সাধারনত গর্ভবতী নারী ও গরুতর অপারেশনের রোগীদের কুমিল্লা শহরের কয়েকটি হাসপাতালে (চুক্তিভিত্তিক) নিয়ে পৌছে দিতেন। আর আসল ব্যাবসা ছিলো এখানেই। রোগীর খুশি হয়ে কিছু দিত আর মোটা কমিশন তো পেতেনই হাসপাতাল থেকে। এলাকায় পরিচত হয়ে ওঠেন লিটন দেবনাথ রোগী ভালোই আসতে থাকে তার কাছে।

হাসপাতালে ঘন ঘন যাতায়াত করতে করতে তিনি নিজেই একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও প্যাথলজি সেন্টার খুলে বসেন কালির বাজার মাইনুদ্দিন মার্কেটের অপর পাশে একটি তিনতলা ভবন ভাড়া নিয়ে । এরপর একটি ডায়রিয়া হাসপাতাল।গ্রামের সহজ সরল মানুষকে প্রতিনিয়ত ধোকা দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন তিনি। নিজেই দেখছেন রুগী, দিচ্ছেন টেষ্ট, ভর্তী করে টাকা তে নিচ্ছেনই পাশাপাশি ঔষধ ও তিনিই দিচ্ছেন।

এছাড়াও হাতুরে ভুয়া ডাক্তার লিটন দেবনাথের অবৈধ “মামনি ডায়াগনষ্টিক সেন্টর ” ও “ডাইরিয়া হাসপাতাল” বিরুদ্ধে রয়েছে আরো বেশ কিছু অভিযোগ। স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের সাথে চলাফেরা আওয়ামীলীগ এর রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে নেতাদের নাম ভাঙ্গীয়ে এসব অভিযোগ ধামাচাপা দেয়ার বিষয়েও প্রতিবেদক কে জানিয়েছেন এলাকার বেশ কয়েকজন।

এসব বিষয়ে কথা বলতে গত বুধবার বিকেলে কালির বাজার মামনি ডায়াগনস্টিক সেন্টার লিটন দেবনাথের চেম্বারে গিয়ে দেখাযায় পুরুষ ও মহিলা রোগীদের লম্বা লাইন। তাদের কেউ গর্ভবতী, কারো অর্থপেডিক সমস্যা, কারো শিশুর নিউমোনিয়া, আবার কারো বা চর্মরোগ সহ আরো নানা জটিল রোগাক্রান্ত রোগী। সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে চেম্বারের সামনে দাড়িয়ে থাকে এপ্রোন পরিহিত ১৩/১৪ বছরের মেয়েটি সটকে পরলো। এরপর অনুমিত নিয়ে দুজন সাংবাদিক প্রবেশ করে তার চেম্বারে ঢুকে দেখা গেলো একজন বয়স্ক হাতভাঙ্গা রোগীর প্রেসক্রিপশন লিখছেন তিনি। তাও আবার একজন অর্থপেডিক সার্জনের ব্যবস্থাপত্র বদলে দিয়ে!! ডাক্তার সার্টিফিকেট ও যোগ্যতা জানতে চাইলে তিনি জানান তিনি রোগী দেখেন না নিয়মিত দুজন ডাক্তার বসেন এমবিবিএস । যদিও তাদের খোজ করে পাওয়া যায় নি। ডাইরিয়া হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অনুমোদন আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন কাগজ জমা দেয়া হয়েছে অনুমোদন হয়ে যাবে কিছুদিন পর।

কুমিল্লায়  সিভিল সার্জন অফিসের নাম ভাঙ্গিয়ে চলছে ভুয়া হাসপাতাল ও ভুয়া ডাক্তার-Aporadh-Barta

এতোদিন অনুমোদন না নিয়ে কি করে ব্যবসা করছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন “বোঝেনই তো ভাই ওখানেও কিছু দিতে হয়   সে এসব নানা বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কথা এড়িয়ে নানা ভাবে ম্যানেজ করতে চান এই প্রতিবেদক কেঅবৈধ পন্থায় ব্যর্থ হয়ে স্থানীয় দুজন আওয়ামীলীগ নেতা কে দিয়ে প্রতিবেদকের সাথে ফোনে কথাও বলান কালির বাজার এলাকার ভুয়া ডাক্তার লিটন দেবনাথতিনতলা হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি ঘুরে দেখা যায় ছোট ছোট খুপরি ঘর ও বদ্ধ রুমে অপরিছন্ন নোংরা পরিবেশে চেকন চেকন বেড বিছানো রয়েছে। বাথরুম ব্যবহারের অনুপযোগী। রোগীর থাকার জায়গা প্রতিটি রুমে দুর্গন্ধ। সোজা কথা হাসপাতাল বা ডায়াগনস্টিক সেন্টার না এটিকে মর্গ ও বলা যেতে পারে।

আর এই ডায়াগনস্টিক সেন্টারের রয়েছে চারজন অদক্ষ নার্স তাদের পাওয়া গেলো হাসপাতালের তিনতলার একটি খুপরি ঘরে। এদের সাথে কথা বলে জানা যায় কারো কোন অভিঞ্জতা বা প্রতিষ্ঠানিক সনদ না থাকলেও তারাই স্যালাইন পুশ, ইনজেকশন দেয়া সহ নার্সের সকল দায়িত্ব পালন করেন তারাই ।

এমন একটি জনবসতিপুর্ণ এলাকায় প্রকাশ্য সড়কের পাশে বাজারের মাঝখানে একজন ভুয়া ও অযোগ্য ডাক্তার, ভুয়া প্যাথলজিসহ ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও অবৈধ হাসপাতাল কি করে চলতে পারে আর সিভিল সার্জন অফিসের নাম ভাঙ্গীয়ে কি করে প্রতিদিন মানুষের জীবন ও রোগ নিয়ে খেলা করে হাজার হাজার টাকা লুটে নিচ্ছে ।

কুমিল্লায়  সিভিল সার্জন অফিসের নাম ভাঙ্গিয়ে চলছে ভুয়া হাসপাতাল ও ভুয়া ডাক্তার-Aporadh-Barta

কালির বাজার এলাকার ভুয়া ডাক্তার লিটন দেবনাথ এর খুটির জোড় কোথায় জানতে এরপর দিন বৃহস্পতিবার কুমিল্লা সিভিল সার্জন অফিসে গিয়ে জানা যায় তিনি চট্টগ্রাম গিয়েছেন সকালেই । সিভিল সার্জন অফিসের আরেক কর্মকর্তা কামাল সাহেবের সাথে কথা বলে জানা যায় লিটন দেবনাথ নামের এর কোন ডাক্তারকে তারা চেনেন না। কালির বাজারে মামনি ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও হাসপাতাল তাদের তালিকার ৩৫৪টির ভেতরে কোথাও নেই।

তবে অবৈধ হাসপাতালের অভিযোগ শুনি তিনি জানান “স্যার শনিবারে কুমিল্লায় চলে আসবেন আশা করি। এবং হাসপাতালটিত খুব দ্রুত সম্ভব হলে রবিবারেই অভিযান চালানো হবে। অবৈধ হাসপাতাল ও ভুয়া ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে এবং বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সেই সাথে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

দেখা হয়েছে: 701
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!