fbpx

|

সীতাকুণ্ডে সাদা পোশাকের পুলিশের নাম আতঙ্ক

প্রকাশিতঃ ১:৩২ পূর্বাহ্ন | জানুয়ারী ২৬, ২০১৮

অনলাইন বার্তাঃ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার সাধারণ মানুষের ‘আতঙ্কে’র নাম সাদা পোশাকের পুলিশ। কোনো ওয়ারেন্ট কিংবা মামলা ছাড়াই লোকজনকে থানায় নিয়ে যাওয়া এ এলাকার নিত্যচিত্র। পরে মাদক কিংবা ডাকাতি মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে আদায় করা হয় মোটা অঙ্কের উেকাচ।

গত বুধবার রাতে একই কায়দায় ভাটিয়ারী এলাকায় আটক করতে গিয়ে রোষানলে পড়ে পুলিশ। এ সময় পুলিশের ছোড়া গুলিতে নিহত হয় সাইফুল ইসলাম নামে এক কিশোর। আহত হয় কমপক্ষে তিনজন।

চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা বলেন, ‘কাউকে ভয় কিংবা নির্যাতন করে অনৈতিক সুবিধা নিতে পারে না কোনো পুলিশ। এটা অপরাধের মধ্যেই পড়ে।’ সাদা পোশাক কিংবা ওয়ারেন্ট ছাড়া আটক করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘প্রত্যেক থানা পুলিশকে সাদা পোশাকে অভিযান না চালানোর জন্য নির্দেশনা রয়েছে। কারও এ নির্দেশনা অমান্যের অভিযোগ পাওয়া গেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

ভাটিয়ারীর কবির আহমদ ভোলা বলেন, ‘পুলিশ মাঝে মাঝে এসে কোনো মামলা ও ওয়ারেন্ট ছাড়াই এলাকার লোকজন তুলে নিয়ে যায়। পরে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়। কেউ টাকা দিতে না পারলে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করে।’

জানা যায়, সীতাকুণ্ডের বিভিন্ন এলাকার জন্য রয়েছে সাদা পোশাকের কয়েকটি বিশেষ টিম। এসব বিশেষ টিমের দায়িত্বে রয়েছেন থানার উপ-পরিদর্শক নাজমুল হুদা, টিকলো মজুমদার, বেলায়েত উল্লাহ, মো. সাইফুল্লাহ, নাজিম মাহমুদ, সুজয় মজুমদার, মাহফুজুর রহমানসহ কয়েকজন।

টিমগুলোর কাজ হচ্ছে এলাকাভিত্তিক সোর্সের সঙ্গে বসে অবস্থাপন্ন পরিবার ও ব্যক্তির তালিকা তৈরি করে কথিত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা। তারা ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধারের নাম করে অবস্থাপন্ন ব্যক্তি ও তাদের সন্তানদের ধরে থানায় নিয়ে যায়। তাদের মামলায় গ্রেফতার দেখানোর নাম করে সর্বনিম্ন ২০ হাজার থেকে লাখ টাকা আদায় করা হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন মামলার ওয়ারেন্ট ও এজাহারভুক্ত আসামিকে গ্রেফতার না করে মাসহারা আদায় করাও বিশেষ এই টিমের কাজ।

একইভাবে মামলা কিংবা ওয়ারেন্ট ছাড়া দুই ব্যক্তিকে তুলে আনতে গিয়ে ১২ জানুয়ারি ভাটিয়ারী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মির্জানগর এলাকার জেলেপাড়ায় গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন এসআই টিকলো মজুমদার, এসআই বেলায়েত উল্লাহ ও এএসআই এমদাদ।

এ ব্যাপারে জেলেপাড়ার সরদার বাদল বলেন, ‘আমরা মাঠে বসে পূজার বিষয়ে আলাপ করছিলাম। এ সময় একটি সিএনজিতে করে সাদা পোশাকে কয়েকজন আমাকেসহ দুজনকে গাড়িতে তুলে নিলে এর প্রতিবাদ করেন সবাই। পরে জনরোষে পড়ে পালিয়ে যায় পুলিশ সদস্যরা।’

তদন্ত কমিটি : সীতাকুণ্ডে জনতার ওপর গুলিবর্ষণের ঘটনা তদন্ত করতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে পুলিশ। চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) মশিউদ্দৌলা রেজাকে প্রধান করে ওই কমিটি হয়। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সীতাকুণ্ড সার্কেল) রেজাউর রহমান ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি— বিশেষ শাখা) শাহজাহান ভূঁইয়া।
চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা বলেন, ‘তদন্ত কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত কমিটি এরই মধ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছে।’

তিন পুলিশ প্রত্যাহার : সীতাকুণ্ডে জনতার ওপর গুলিবর্ষণের ঘটনায় দুই পুলিশ ও এক আনসার সদস্যকে সীতাকুণ্ড থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এর মধ্যে দুই পুলিশ সদস্য উপ-পুলিশ পরিদর্শক নাজমুল হুদা ও কনস্টেবল আবুল কাশেমকে জেলা পুলিশ লাইনসে যুক্ত করা হয়েছে। আর আনসার সদস্য ইসমাইল হোসেনকে নিজ বাহিনীতে ফেরত পাঠানো হয়েছে।
পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা বলেন, ‘এরই মধ্যে দুই পুলিশ ও এক আনসার সদস্যকে সীতাকুণ্ড থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

কী হয়েছিল সেই রাতে : আমাদের সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি মেজবাহ উদ্দিন মিঠু জানান, উপ-পরিদর্শক নাজমুল হুদাকে বুধবার রাতে বিশেষ অভিযানের জন্য থানা থেকে দায়িত্ব দেওয়া হয় বাড়বকুণ্ডে। কিন্তু তিনি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের না জানিয়ে সাদা পোশাকে নিজের ব্যক্তিগত গাড়ি চেপে চলে যান ভাটিয়ারীর তেলিপাড়ায়। ওই এলাকায় গিয়ে কোনো ওয়ারেন্ট ছাড়াই সাইফুল ইসলাম, ইমরান আলী জয়, সাদ্দাম, কবির আহমদ ভোলাসহ কয়েকজনকে আটক করে গাড়িতে তুলতে চাইলে এলাকাবাসী পুলিশের কাছে তাদের বিরুদ্ধে কোনো গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে কিনা তা জানতে চায়। এ সময় কোনো কাগজ না দেখিয়ে টাকা দাবি করেন এবং এলাকাবাসীকে অকথ্য ভাষার গালি দেন। সবাইকে মাদক মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন তিনি।

একপর্যায়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি শুরু হয়। পরে এলাকাবাসী জড় হতে থাকলে পুলিশ হঠাৎ গুলিবর্ষণ শুরু করে। এতে সাইফুলসহ কমপক্ষে তিনজন আহত হন। পরে তারা গুলিবর্ষণ করতে করতে পালিয়ে যান।

এলাকাবাসী উদ্ধার করে সাইফুলসহ তিনজনকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরপর এলাকাবাসী ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকেন।

এ সময় স্থানীয় এমপি দিদারুল আলমসহ প্রশাসনের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে অবরোধ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

সুত্র বাংলাদেশ প্রতিদিন

দেখা হয়েছে: 330
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!