|

গ্রামীণ অবকাঠামোর বেহাল চিত্র জনদুর্ভোগ চরমে

প্রকাশিতঃ ৭:২১ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ৩১, ২০১৭

সম্পাদকীয়ঃ

পর্যাপ্ত অর্থের অভাবে সড়ক মেরামত করতে না পারায় জনদুর্ভোগ যখন চরমে, ঠিক তখনই খবর মিলছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে থাকা ৭০ হাজার কিলোমিটার সড়কের আয়ুষ্কাল শেষ। এতেই প্রতীয়মান হয়, কর্তৃপক্ষ সড়ক রক্ষণাবেক্ষণ ও নির্মাণে কতটা উদাসীন।

একটি শীর্ষ জাতীয় বিজনেস পত্রিকায় সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারা দেশে এলজিইডির আওতাধীন পাকা ও মাটির সড়ক রয়েছে ২ লাখ ৮৯ হাজার কিলোমিটার। বিশাল এ সড়ক নেটওয়ার্ক রক্ষণাবেক্ষণে প্রতি বছর প্রয়োজন কমপক্ষে ১৭ হাজার কোটি টাকা। এর বিপরীতে এলজিইডি বরাদ্দ পায় মাত্র দেড় হাজার কোটি টাকা। পর্যাপ্ত বরাদ্দের অভাবে সড়কগুলো নিয়মিত বা সময়ান্তর রক্ষণাবেক্ষণ করা সম্ভব হয় না। মূলত এ কারণেই দেশের ৭০ হাজার কিলোমিটার সড়ক আজ আয়ুষ্কাল হারিয়ে চলাচলের অনুপযোগী। প্রচুর অর্থ ব্যয় হলেও সড়কগুলো পুনর্নির্মাণ ছাড়া আর কোনো পথ নেই। আয়ুষ্কাল হারানো অধিকাংশ সড়ক বর্ষার সময় পুরোপুরি চলাচলের অনুপযুক্ত হয়ে পড়ে। সে সময় সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এর প্রভাব পড়ে ওই এলাকার মানুষের ওপর, অর্থনৈতিক গতিশীলতাও বাধাগ্রস্ত হয় এতে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিটি সড়কেই চার ধরনের মেরামত প্রয়োজন হয়। এর মধ্যে রয়েছে বছরভিত্তিক নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ, দু-তিন বছর পর হালকা মেরামত বা পিরিয়ডিক মেইনটেন্যান্স (পিএমপি) মাইনর, ৫-১০ বছর পর ভারী মেরামত বা পিএমপি মেজর এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর জরুরি মেরামত। এগুলো সঠিকভাবে অনুসরণ করা হলে সড়ক-মহাসড়কের যে উপযোগিতা পাওয়া যায়, তার আর্থিক মূল্য নতুন সড়ক নির্মাণের চেয়ে কম নয়। কিন্তু নতুন সড়ক নির্মাণে সরকারের মনোযোগ যতটা, তার চেয়ে ঢের কম বিদ্যমান সড়ক রক্ষণাবেক্ষণে। মূলত সরকারের এ দৃষ্টিভঙ্গির কারণে রক্ষণাবেক্ষণে কাঙ্ক্ষিত বরাদ্দ পাওয়া যাচ্ছে না। সুতরাং বিদ্যমান সড়ক-মহাসড়কের সর্বোচ্চ উপযোগিতার প্রত্যাশিত আর্থিক সুফল নিশ্চিতে সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন জরুরি।

দেশে সড়ক রক্ষণাবেক্ষণে দীর্ঘমেয়াদি কোনো পরিকল্পনা নেই। প্রতি বছর বর্ষার পর সড়ক সংস্কার করা হয়, পরবর্তী বর্ষায় যেগুলো পুনরায় ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে রক্ষণাবেক্ষণের বিদ্যমান ধরনটা সঠিক নয়। বিশ্বের আর কোথাও এ ধরন নেই, সেখানে ১০-১২ বছর পর সংস্কার করা হয়। সুতরাং এ ধরন থেকে আমাদের বেরিয়ে এসে সড়ক টেকসই করতে নিতে হবে সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা। দেশে ফি বছর এ খাতে অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে। কিন্তু মিলছে না সুফল। সুফল না মেলার অন্তরালের কারণগুলোও অনুসন্ধান জরুরি। সড়ক নির্মাণে মানকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব প্রদান, বিপজ্জনক বাঁক মুক্তকরণ, পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা উন্নতকরণ, পরিবহনের গতি ও ওজন নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদি কাজ করা না হলে সড়ক নিরাপদ হবে না। বেহাল দশাও কাটবে না। নির্মিত সড়ক রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতি বছর ন্যূনতম ২০ শতাংশ অর্থ বরাদ্দ রেখে কঠোর ব্যবস্থাপনায় ব্যবহার করা জরুরি। এ কাজগুলোর সঙ্গে দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করতে সরকার যতদিন না নজর দেবে ততদিন সড়কের বেহাল দশা অব্যাহত থাকবে, আয়ুষ্কালও শেষ হয়ে যাবে।

গ্রামীণ অবকাঠামোর বেহাল চিত্র জনদুর্ভোগ চরমে-Aporadh-Barta

গ্রামীণ অবকাঠামোর বেহাল চিত্র জনদুর্ভোগ চরমে-Aporadh-Barta

আমাদের দেশে সড়ক মেরামতের কাজটি চলে দায়সারাভাবে। ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই নষ্ট হয়ে যায় মেরামতকৃত সড়ক-মহাসড়ক। বিটুমিনের প্রলেপ উঠে গিয়ে তৈরি হয় খানাখন্দ। পরিণামে ভোগান্তি পোহাতে হয় সড়ক ব্যবহারকারীদের। আরেকটি বিষয়, অপ্রতুল বরাদ্দ তো আছেই, তার ওপর রয়েছে অনিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ। দেখা যাচ্ছে, নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ না করায় সড়ক মেরামতে ব্যয়ও বেড়ে যাচ্ছে। এতে ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিবেশ হচ্ছে বিঘ্নিত, যা টেকসই অর্থনীতির অন্তরায়। একই সঙ্গে সড়কের নিরাপত্তা কমে বাড়ছে দুর্ঘটনার আশঙ্কা। আর দুর্ঘটনা, যানবাহনের ক্ষতিসহ বিভিন্ন কারণে সড়ক ব্যবহারের ব্যয় বাড়ছে বহুগুণ। সুতরাং সার্বিক অর্থনীতির গতিসঞ্চারে রক্ষণাবেক্ষণের গুণগত মান নিশ্চিতে বরাদ্দ বাড়ানোর বিকল্প নেই।

এক্ষেত্রে প্রণয়নকৃত সড়ক রক্ষণাবেক্ষণ তহবিল আইনের আওতায় পৃথক তহবিল গঠনে সরকার যে উদ্যোগ নিয়েছে, তার কার্যকর বাস্তবায়ন হলে পর্যাপ্ত বরাদ্দ না পাওয়ার সমস্যাটির সমাধান হবে। সূ্ত্র: বণিক বার্তা

দেখা হয়েছে: 213
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!