|

নড়াইলে বাংলার ঐতিহ্যবাহী সোনারাঙা মাছ বিলুপ্তি

প্রকাশিতঃ ১০:৩২ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ২৩, ২০১৭

উজ্জ্বল রায় নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■
বাংলার ঐতিহ্যবাহী এক-দেড় ইঞ্চি আকারের মাছ দারকিনার অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়ছে। দূষণ, প্রজনন ঋতুতে অবাধে শিকার, কীটনাশকের ব্যবহার বৃদ্ধির কারণে বসবাসকারী হিসেবে পরিচিত, দৃষ্টিনন্দন ও সুস্বাদু এই মাছের সংরক্ষণ নিয়ে সচেতনতা বাড়ান জরুরি বলে মনে করছেন ভোজ নরসিকরা।

 

জনপ্রিয় ও পরিচিত দারকিনা মাছের অস্তিত্ব রক্ষায় সংশ্লিষ্টরা উদ্যোগী হলে থালার পাতে দারকিনা মাছের মেনু দেখার সুযোগও পাবে প্রজন্মরা। নড়াইলের সর্বত্র পরিবারিক খাবার এমনকি আত্মীয়-স্বজন বাড়িতে এলে তাদের খাবারের মেনুতে থাকত দারকিনা মাছ। জেলার সকল বাজারেই এর চাহিদা এখনও ব্যাপক। কেজিপ্রতি ৪/৫শ’ টাকা দামে বিক্রি হয়। চাহিদার তুলনায় উৎপাদন কম বলে অন্য বিলুপ্ত প্রায় দারকিনা মাছের দামও বেশি। অনেকক্ষেত্রেই তা সাধারণ ভোজনরসিক বা মৎস্যপ্রেমীদের নাগালের বাইরে থাকছে।

 

একসময় নদী-নালা, খাল-বিল, পুকুর-ডোবায় সবচেয়ে বেশি যে মাছটি চোখে পড়ত তার নাম দারকিনা। যদিও অঞ্চলভিত্তিক এই মাছটিকে দারকিনি, দারখিলা, ডানকানা, ডানখিনা, চুক্কুনি, মলঙ্কা নামেও সম্বোধন করা হয়। সোনারাঙা মাছটির গোটা গায়ের মাঝে কাল দাগ দেখা যায়। ৮০ এর দশকে ক্ষত রোগে এ মাছটি বড় ধরনের ক্ষতির শিকার হয়। মানুষের মত গবাদি ও বন্য বহু পাখিরও প্রিয় খাবার দারকিনা মাছ।

 

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৮ সালে আইইউসিএন সমীক্ষা করে জানিয়েছে- পরিবেশের পরিবর্তন, আবাসস্থলের সংকোচন ও মানবসৃষ্ট নানাবিধ কারণে বাংলাদেশের ৫৪ প্রজাতির মাছ বিপন্ন হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে দারকিনাও একটি।

দেখা হয়েছে: 762
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ উবায়দুল্লাহ
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪