fbpx

|

মোহনপুরে শিশু রাব্বি হত্যা মামলায় তিন জনের ফাঁসি

প্রকাশিতঃ ২:৪৬ পূর্বাহ্ন | ডিসেম্বর ২০, ২০১৭

নাজিম হাসান,রাজশাহী প্রতিনিধি:
রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার বেড়াবাড়ী ডাইংপাড়ার চাঞ্চল্যকর তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র শিশু রাব্বি অপহরণ ও নৃশংস হত্যা মামলায় তিন জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত।

 

মঙ্গলবার মামলার ৭ আসামীকে দ্রুতবিচার ট্রাইব্যূনাল আদালতে নেয়া হলে বিচারক শিরিন কবিতা আখতার এ রায় প্রদান করেন। রাষ্ট্রপক্ষের পিপি এ্যাডভোকেট এন্তাজুল হক বাবু বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ৩০২ ধারায় দোষি সাব্যস্ত করে তিনজনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেকের ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। মামলার অপর এক আাসামীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে । এছাড়াও তিন আসামীকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়। রায় ঘোষণার সময় সাত আসামীকে আদালতে হাজির করা হয় বলে জানান তিনি।

 

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন,উপজেলার বেড়াবাড়ি ডাইংপাড়ার আবুল কাশেমের ছেলে মাজেদুর রহমান সাগর, হযরত আলীর ছেলে নাজমুল হক ও আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে রিপন সরকার লিটন। যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রাপ্ত আসামীরা হলেন, মৃতুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী মাজেদুর রহমানের মা আসিনুর বেগম। এবং মামলা থেকে খালাস পেয়েছেন আবুল কাসেম,আমিনুল ইসলাম ও সাহাবুদ্দিন।

 

আইনজীবী এন্তাজুল হক বলেন, গত ২৯ নভেম্বর ৭ আসামিকে আদালতে হাজির করে আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক শোনেন বিচারক শিরীন কবিতা আখতার। ওই দিন আসামীদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন এবং ১৯ ডিসেম্বর মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন। এই মামলায় বাদি পক্ষের ১৮ জন এবং আসামি পরে ২ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৯ ডিসেম্বর আসামি নাজমুল ও রিপন শিশু রাব্বিকে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য সাগরের সঙ্গে পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় সাগর ওই শিশুকে ডেকে নিয়ে যান। সাগরের বাড়ির পাশে আসামি নাজমুল ও রিপন আগে থেকেই অপেক্ষা করছিলেন। সেখানে রাব্বিকে নিয়ে যাওয়া হলে রিপন ও নাজমুল রাব্বিকে ধারালো হাঁসুয়া দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন।

 

এ সময় রাব্বির মাথা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়। কেটে নেয়া হয় দুই হাত এবং জিহ্বাও। এরপর তার লাশ বিলের মধ্যে নিয়ে গিয়ে একটি নালার ভেতর রেখে মাটিচাপা দেয়া হয়। এ ঘটনার পরদিন ছেলে নিখোঁজ থাকার ব্যাপারে আবুল হোসেন থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপর ওই দিনই বিকেলে সাহাবুদ্দিন আবুল হোসেনের বাড়িতে গিয়ে তাকে জানান, রাব্বি নিখোঁজ থাকার ব্যাপারে কেউ একজন মুঠোফোনে তার সঙ্গে কথা বলবেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফোনটি ধরলে তাকে জানানো হয়, রাব্বি তাদের হেফাজতে আছে। তাকে ফেরত পেতে হলে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে। কথা বলার সময় ফোনের ওপাশের ওই ব্যক্তির কথা রেকর্ড করা হয়। এরপর তা শুনে গ্রামবাসী ধারণা করেন, কণ্ঠটি গ্রামের আমিনুলের।

 

যোগাযোগের স্বার্থে সাহাবুদ্দিনের মুঠোফোনটি ওই সময় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছেই রাখা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে ওই মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর থানায় একটি অপহরণের মামলা করা হয়। মামলার পর পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নামে। অনুসন্ধানের একপর্যায়ে পুলিশ জানতে পারে, যে মুঠোফোন থেকে কল দিয়ে আবুল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে সে ফোনে অন্য একটি সিম ব্যবহার করা হচ্ছে। এরপর পুলিশ সাহাবুদ্দিনের মুঠোফোন থেকেই ওই নম্বরটিতে যোগাযোগের চেষ্টা করলে দেখা যায়, সাহাবুদ্দিনের ফোনে ‘আসিনুর কাকি’ নামে নম্বরটি সেভ করা আছে। এরপর পুলিশ আসিনুরের বাড়িতে অভিযান চালায়। সেখান থেকে উদ্ধার করা হয় মুঠোফোন।

 

এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে আসিনুর, তার স্বামী কাশেম এবং ছেলে সাগরকে গ্রেপ্তারও করা হয়। পরদিন সাগর হত্যাকাণ্ডে জড়িত স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ পরে রিপন ও নাজমুলকে গ্রেপ্তার করে। ফোনে কথা বলেছেন, এমন সন্দেহে গ্রেপ্তার করা হয় আমিনুলকেও। এরপর ২৬ ডিসেম্বর শিশু রাব্বির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে আসিনুর বেগমও আদালতে জবানবন্দি দেন। তিনি তার জবানবন্দিতে বলেন, বাড়ির পাশে হত্যার সময় রাব্বির চিৎকার তিনি শুনেছিলেন। ঘটনাটি বুঝতেও পেরেছিলেন। কিন্তু আসামি নাজমুল ও রিপন তাকে হুমকি দিয়েছেলিনে যে, ঘটনা প্রকাশ করলে তাকে এবং তার স্বামীকেও হত্যা করা হবে। তাই তিনি কারও কাছে ঘটনা প্রকাশ করেননি। রায় ঘোষণার সময় আদালত বলেছেন, ঘটনা জেনেও প্রকাশ না করাটিও অপরাধ। আসিনুর বেগম এ অপরাধই করেছেন। এ জন্য তাকে অমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হলো। আর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত ছিলেন বলে প্রতীয়মান হয়েছে। তাই তাদের সাজা দেয়া হয়েছে।

 

আদালত আরও বলেছেন, সাহাবুদ্দিনের মুঠোফোনে ফোন করে আসামিরা আবুল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছেন বলে প্রতীয়মান হয়েছে। তবে এতে সাহাবুদ্দিনের কোনো অপরাধ পাওয়া যায়নি। তাই তাকে খালাস দেয়া হয়েছে। আর আমিনুলের কণ্ঠ ও রেকর্ড করা কণ্ঠ কোনো বিশেষজ্ঞ দিয়ে পরীক্ষা করা হয়নি। শুধু কয়েকজন মানুষের ধারণার ভিত্তিতে কাউকে সনাক্ত করা যায় না।

 

অন্য আসামিরা তার সংশ্লিষ্টতার কথাও বলেননি। তাই তাকে খালাস দেয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্টতা না পাওয়ায় খালাস দেয়া হয়েছে আবুল কাশেমকেও। চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলাটির অভিযোগপত্র দাখিল করেছিল পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। অভিযোগপত্রে এই সাতজনকেই অভিযুক্ত করা হয়েছিল। রায় ঘোষণার সময় তারা সবাই আদালতে হাজির ছিলেন। রায় ঘোষণা শেষে দণ্ডপ্রাপ্তদের রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। এক মাসের মধ্যে তারা রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করতে পারবেন।

দেখা হয়েছে: 505
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!